হিজবুল্লাহকে কালোতালিকাভুক্ত করলো জার্মানি, ইরানের ক্ষোভ

লেবাননের ইসলামি প্রতিরোধ আন্দোলন হিজবুল্লাহকে সন্ত্রাসী সংগঠন হিসেবে কালো তালিকাভুক্ত করেছে জার্মানি।একই সাথে নিজেদের ভূমিতে এই গোষ্ঠীটির কার্যক্রম নিষিদ্ধ করেছে দেশটির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

গতকাল বৃহস্পতিবার ভোরে হিজবুল্লাহ সংশ্লিষ্টতার অভিযোগে চারটি আলাদা শহরের মসজিদে অভিযান চালিয়েছে পুলিশ। নিরাপত্তা কর্মকর্তাদের ধারণা জার্মানিতে হিজবুল্লাহর উগ্রপন্থী ১৫০০ সদস্য রয়েছে। ইসরাইল ও যুক্তরাষ্ট্র হিজবুল্লাহ নিষিদ্ধ করতে জার্মানির ওপর চাপ প্রয়োগ করেছে।
জার্মান সরকারের এই সিদ্ধান্তের কঠোর সমালোচনা করেছে ইরান।

তেহরান বলেছে, হিজবুল্লাহ মধ্যপ্রাচ্যে উগ্র সন্ত্রাসী গোষ্ঠীগুলোর বিরুদ্ধে লড়াই করছে। এ অবস্থায় জার্মানির সিদ্ধান্তের কারণে যে ক্ষতি হবে তার পরিণতি বার্লিনকে ভোগ করতে হবে। খবর তেহরান ভিত্তিক গণমাধ্যমের।

ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র সাইয়্যেদ আব্বাস মুসাভি এক বিবৃতিতে বলেছেন, মধ্যপ্রাচ্য অঞ্চলের বাস্তবতা বিবেচনা না করে ইউরোপের কিছু দেশ তাদের নীতি প্রণয়ন করছে।

আব্বাস মুসাভি বলেন, ইহুদিবাদী ইসরাইল ও আমেরিকার স্বার্থ রক্ষার জন্যই জার্মান সরকার হিজবুল্লাহকে কালো তালিকাভুক্ত করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। জার্মান সরকারের এ সিদ্ধান্তকে তেহরান চরম অদূরদর্শী বলে সমালোচনা করেন।

বৃহস্পতিবার দিনের প্রথম দিকে জার্মান সরকার হিজবুল্লাহকে সন্ত্রাসী সংগঠন হিসেবে কালো তালিকাভুক্ত করে এবং জার্মানিতে এ সংগঠনের যেকোনো তৎপরতা নিষিদ্ধ ঘোষণা করে। এছাড়া, হিজবুল্লাহর সঙ্গে সম্পর্ক রাখে এমন যেকোনও ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে দেশটির আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীকে অভিযান চালানোর নির্দেশ দেয় জার্মান সরকার।

শিয়াপন্থী গ্রুপ হিজবুল্লাহ গত জানুয়ারিতে দায়িত্ব নেয়া লেবাননের প্রধানমন্ত্রী হাসান দিয়াবের অন্যতম সমর্থক। সিরিয়ার প্রেসিডেন্ট বাসার আল আসাদের পক্ষে দেশটির গৃহযুদ্ধে ভূমিকা রাখছে তারা। আগে থেকেই গোষ্ঠীটিকে সন্ত্রাসী সংগঠন হিসেবে বিবেচনা করে আসছে যুক্তরাষ্ট্র। তবে হিজবুল্লাহর রাজনৈতিক ও সশস্ত্র ইউনিটকে আলাদাভাবে বিবেচনা করে আসছিল জার্মানি।

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

error: Content is protected !!