হজ্ব বাতিলকারী দেশের সংখ্যা বাড়ছেই

নিজস্ব প্রতিবেদক:

সৌদি আরবে প্রতিনিয়তই বাড়ছে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা। এ ভাইরাসের প্রকোপের কারণে চলতি বছর হজ্ব পালিত হবে কিনা তা নিয়ে সিদ্ধান্তহীনয় রয়েছে সৌদি সরকার।এ অবস্থায় হজ্ব বাতিলকারী দেশের সংখ্যা বাড়ছে। এ পর্যন্ত বিভিন্ন দেশের শতকরা প্রায় ২০ ভাগ হজ্বযাত্রীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে যে, তারা এ বছর হজ্ব পালন করতে যাবেন না।

দেশ হিসেবে কয়েকটি মুসলিম ও অমুসলিম দেশ হজ্বে লোক পাঠানো হবে না বলে জানিয়ে দিয়েছে। সিঙ্গাপুর সর্বপ্রথম হজ্ব বাতিলের ঘোষণা দেয়া এবং এরপর ইন্দোনেশিয়া, থাইল্যান্ড, ভারত, মালয়েশিয়া, ব্রুনাই ও দক্ষিণ আফ্রিকা এই দলে যোগ দিয়েছে।এই সাত দেশের মধ্যে রয়েছে সর্বোচ্চ মুসলিম জনসংখ্যা অধ্যুষিত ইন্দোনেশিয়া।

হজ্বের আনুষ্ঠানিকতা পালনের জন্য এই সাত দেশের মোট কোটা চার লাখ ২০ হাজার অর্থাৎ মোট হজ্ব পালনকারী মুসলিম নাগরিকদের শতকরা ২০ ভাগ রয়েছেন এই সাত দেশে।

বিভিন্ন দেশ হজ্ব বাতিল করলে চলতি বছর হজ্ব পালিত হবে কিনা তা নিয়ে এখনো সৌদি আরব কোনো সিদ্ধান্ত জানায়নি। গত মার্চ মাসে সৌদি আরবে করোনা রোগী শনাক্ত হওয়ার পর ওমরাহ পালন বন্ধ করে দিয়েছিল রিয়াদ। সেইসঙ্গে কাবাশরীফ জিয়ারতও বন্ধ রাখা হয়েছিল। 

যদিও পরবর্তীতে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে স্বল্প পরিষদে আল্লাহর ঘর জিয়ারতের অনুমতি দেয়া হয়। সৌদি সূত্র মতে, প্রতি বছর অন্তত ২৫ লাখ মুসলমান হজ্ব পালনের জন্য দেশটি সফরে যান।

সৌদি আরবের সঙ্গে চুক্তি অনুযায়ী, চলতি বছর বাংলাদেশ থেকে এক লাখ ৩৭ হাজার ১৯৮ জন হজে যাওয়ার কথা ছিল। এর মধ্যে সরকারি ব্যবস্থাপনায় ১৭ হাজার ১৯৮ জন এবং বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় এক লাখ ২০ হাজার জনের হজে যাওয়ার সুযোগ ছিল।

সরকারি ব্যবস্থাপনায় তিন হাজার ৪৫৭ জন এবং বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় ৬১ হাজার ১৩৭ জনসহ মোট ৬৪ হাজার ৫৯৪ জন নিবন্ধন করেন।

প্রসঙ্গত, সৌদি আরবে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে এক লাখ ৪৫ হাজার ৯৯১ জনে। আর মৃতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে এক হাজার ১৩৯ জনে। এ অবস্থায় এ বছর হজ্ব হবে কীনা তাও এখনও নিশ্চিত করেনি সৌদি কর্তৃপক্ষ

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

error: Content is protected !!