সরকারের নতুন নির্দেশনা: গুরুতর এলাকা কেবল লকডাউন

চলমান মহামারি করোনা ভাইরাসের কারণে গুরুতর বা অধিক সংক্রমিত এলাকা চিহ্নিত করে কেবল সেই এলাকা লকডাউন করার নতুন নির্দেশনা দিয়েছে সরকার।মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ মঙ্গলবার (৩০ জুন) রাতে করোনা ভাইরাসজনিত রোগ কোভিড-১৯-এর বিস্তার রোধকল্পে শর্তসাপেক্ষে সার্বিক কার্যাবলী/চলাচলে নিষেধাজ্ঞার মেয়াদ ০৩ আগষ্ট পর্যন্ত বাড়িয়ে যে নির্দেশনা জারি করে তাতে এই সিদ্ধান্ত জানানো হয়।

এই ভাইরাসের সংক্রমণ রোধে ২৬ মার্চ থেকে ৩০ মে পর্যন্ত টানা সাধারণ ছুটি শেষে ৩১ মে থেকে ১৫ জুন পর্যন্ত চলাচল সীমিত করে অফিস-আদালত এবং গণপরিবহন ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়া হয়। সেই মেয়াদ পরে ৩০ জুন পর্যন্ত বাড়ানো হয়।

তবে এখন ছুটি এড়িয়ে বিস্তর এলাকার পরিবর্তে গুরুতর সংক্রমিত এলাকা লকডাউনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। এরই ধারাবাহিকতায় পূর্ব রাজাবাজার ১২ জুন থেকে লকডাউন করা হয়। আর ৪ জুলাই থেকে ২১ দিনের লকডাউন করা হচ্ছে ওয়ারী এলাকার একাংশ। এসব এলাকায় সাধারণ ছুটিও ঘোষণা করা হয়েছে।

লকডাউন নিয়ে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের নতুন নির্দেশনায় বলা হয়, স্বাস্থ্য অধিদপ্তর প্রণীত ‘কোভিড -১৯ সংক্রমণ ঝুঁকি জোনভিত্তিক লকডাউন ব্যবস্থা বাস্তবায়ন কৌশল/গাইড’ অনুসরণ করে জোনিং সিস্টেম বাস্তবায়ন করতে হবে।

‘রেড জোন ঘোষণা করে সে এলাকায় কেবল গুরুতর সংক্রমিত পরিসীমাকে লকডাউনের আওতায় আনতে হবে।’

এতে আরও বলা হয়, সেখানে সর্বসাধারণের দৈনন্দিন প্রয়োজনীয় দ্রব্যাদি-বিষয়াদির সরবরাহ/প্রাপ্যতা নিশ্চিত করতে হবে। স্বাস্থ্য অধিদপ্তর এ বিষয়ে সুস্পষ্ট অনুমোদন ও নির্দেশনা দেবে। সিটি করপোরেশন এলাকায় সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ এবং অন্যান্য এলাকায় জেলা প্রশাসন এ সংক্রান্ত কার্যাবলীর সার্বিক সমন্বয় করবে।

এদিকে, করোনাভাইরাসের সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে না আসায় আরও এক মাসের বেশি সময় ধরে (৩ আগস্ট পর্যন্ত) এখনকার মতোই সীমিত পরিসরে চলবে অফিস। তবে দোকানপাট, বাজার ও শপিং মল খোলা রাখার সময় তিন ঘণ্টা বাড়িয়ে সন্ধ্যা সাতটা পর্যন্ত খোলার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার।

জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন মঙ্গলবার এই তথ্য জানিয়েছেন। কাল বুধবার থেকে এই সিদ্ধান্ত কার্যকর হবে। এ বিষয়ে আলাদা প্রজ্ঞাপন জারি হবে। তবে এখনকানর মতো সবাইকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে।

এর আগে দীর্ঘ ৬৬ দিন ছুটি থাকার পর গত ৩১ মে থেকে সরকারি-বেসরকারি অফিস সীমিত আকারে চলছে। বাংলাদেশ সচিবালয়ে সর্বোচ্চ ২৫ শতাংশ কর্মকর্তা কর্মচারীর উপস্থিতিতে অফিস চলছে। আজ মঙ্গলবারও সচিবালয়ে কয়েকটি মন্ত্রণালয় ঘুরে দেখা কর্মকর্তা-কর্মচারীর উপস্থিতি খুবই। বিভিন্ন মন্ত্রণালয় কর্মকর্তা-কর্মচারীদের পালা করে অফিস চালাচ্ছে।

বর্তমানে দোকান পাট সকাল ১০টা থেকে বিকেল চারটা পর্যন্ত খোলা রাখা যাচ্ছে। বুধবার থেকে সন্ধ্যা সাতটা পর্যন্ত খোলা রাখা যাবে।

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

error: Content is protected !!