সরকারপন্থী চিকিৎসকদের নেতা ইকবাল আর্সলানের স্ট্যাটাস নিয়ে ক্ষোভ

সরকারপন্থী চিকিৎসকদের নেতা ডা. ইকবাল আর্সলানের স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক (ডিজি) পদে নিয়োগ নিয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে দেওয়া একটি স্ট্যাটাস নিয়ে চিকিৎসকরা ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। তাঁরা বলছেন, এ ধরনের স্ট্যাটাস চিকিৎসকদের মনোবল ভেঙে দেওয়া এবং সরকারকে হেয়প্রতিপন্ন করার চেষ্টার শামিল।

শনিবার স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদের (স্বাচিপ) সভাপতি ডা. ইকবাল আর্সলান এক স্ট্যাটাসে উল্লেখ করেন, ‘আমরা অবগত হয়েছি, প্রশাসনের উচ্চ পর্যায় থেকে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরে সিএমএসডির মতো আমলা পদায়নের পাঁয়তারা করছে। আপনারা ইতিমধ্যেই গণতন্ত্রের মানস কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা আর তাঁর সরকারকে অনেক বিব্রত করেছেন আপনাদের ব্যর্থতার দায় অন্যের ঘাড়ে চাপাবেন না, আর বেশি ধৃষ্টতা দেখাবেন না।…’

স্বাচিপ নেতার এই স্ট্যাটাস নিয়েই চিকিৎসকদের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়।

এর সমালোচনা করে চিকিৎসকদের জাতীয় সংগঠন বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশনের (বিএমএ) সভাপতি ডা. মোস্তফা জালাল মহিউদ্দিন বলেন, ‘ইকবাল আর্সলান এটা উনি কীভাবে দিছেন, এটা উনি জানেন? ডিজি অফিসে কে বসবে এটা নিয়ে একটা স্ট্যাটাস দিয়ে দিলেই কী হয়ে গেল? আমাদের এখানে কখনই এমনটা হয়নি, বাহিরের কাউকে এনে ডিজি বানিয়েছে। এমন কোনো ইতিহাস নেই। সরকার যদি এমন কিছু করে তাহলে চিকিৎসক সমাজ মেনে নিবে না। তখন কী করণীয় তা আমরা করব। তার আগে এ ধরনের স্ট্যাটাস দেওয়ার মানে হচ্ছে, ডাক্তারদের মনোবল ভেঙে দেওয়া। যারা এসব করছে তারা সরকারকে হেয়প্রতিপন্ন করার জন্যই করছে। তারা সরকারের ভালো চায় না। তারা সরকারকে বিব্রত করার জন্য এসব করছে। যারা এসব করে তারা পার্টির চিন্তা করে এসব করে না।’

স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদের (স্বাচিপ) মহাসচিব অধ্যাপক ডা. এম এ আজিজ বলেন, ‘এ স্ট্যাটাসের কোনো সত্যতা নেই। মন্ত্রণালয়েও এমন কোনো কিছুই হয়নি। আমি ব্যক্তিগতভাবেও খোঁজ নিয়েছি, এর কোনো ভিত্তি নেই। সরকার যেভাবে এই ক্রান্তিলগ্নে দেশ চালাচ্ছে, যেখানে সম্মুখসারিতে রয়েছেন ডাক্তারেরা, সেখানে এই পদে ডাক্তার ছাড়া অন্য কেউ বসবে তা আমার মনে হয় না। এটা আসলেই বিভ্রান্তিকর। নিশ্চিত না হয়ে এমন একটা স্ট্যাটাস দেওয়াও ঠিক না। কারণ এ তথ্যের কোনো সত্যতা আমার কাছে নেই।’

তবে স্ট্যাটাসের বিষয়ে স্বাচিপ সভাপতি অধ্যাপক ডা. ইকবাল আর্সলান বলেন, ‘চিকিৎসক সমাজের সবাই আমার একথা সমর্থন করেছে। কেউ হতাশ বা বিভ্রান্ত হয়েছে তা আমার জানা নেই। যদি কেউ মনে করে আমি ঠিক বলিনি তাহলে তারা প্রকাশ্যে বলুক।

এ বিষয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেন, ‘আমি এ বিষয়ে কিছুই জানি না।

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

error: Content is protected !!