December 4, 2020

মাই পেটারসন. লাইফ

ভয়েস অফ দ্যা কমিউনিটি

সময়ের সঙ্গে তাল মেলাতে জাতিসংঘের সংস্কার প্রয়োজন: মোদী

গোটা দুনিয়া সীমান্ত সঙ্ঘাত ঘিরে গলওয়ানে ভারতীয় এবং চীনা সেনার রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের সাক্ষী। জুনের মাঝামাঝি ঘটে যাওয়া ওই ঘটনার প্রভাব এখনও তাজা রয়েছে দুই প্রতিবেশীর মধ্যে দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কে। সেই মোক্ষম সময়েই রাষ্ট্রপুঞ্জের সাধারণ সভায় ভারতকে নিরাপত্তা পরিষদে আরও গুরুত্বপুর্ণ ভূমিকা পালন করতে দেওয়ার পক্ষে সুর চড়ালেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। বস্তুত ভারতের নিরাপত্তা পরিষদের স্থায়ী সদস্যপদ পাওয়ার দাবিটা আরও জোরালো ভাবে তুললেন প্রধানমন্ত্রী। ‘‘আর কত দিন আমাদের অপেক্ষা করতে হবে? আর কত দিন রাষ্ট্রপুঞ্জের সিদ্ধান্ত নেওয়ার প্রক্রিয়ার বাইরে থাকবে ভারত?’’—এই প্রশ্নও তুললেন তিনি।

শনিবার (২৬ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যায় জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদে দেওয়া ভাষণে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী প্রশ্ন রাখেন, ‘আর কতদিন আমাদের অপেক্ষা করতে হবে? মোদি বলেন, সময়ের সঙ্গে তাল মেলাতে জাতিসংঘের সংস্কার প্রয়োজন। ভারতীয় সম্প্রচারমাধ্যম এনডিটিভির প্রতিবেদন থেকে এসব তথ্য জানা গেছে।
নরেন্দ্র মোদি

সাধারণ পরিষদে দেওয়া ভাষণে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি বলেন, ‘আমরা যখন দুর্বল ছিলাম, তখন দুনিয়ার জন্য সমস্যা তৈরি করিনি। আবার যখন শক্তিশালী হয়ে গেলাম তখনও বিশ্বের বোঝা হইনি। কোন পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে? জাতিসংঘের শান্তিরক্ষা মিশনে ভারত সেনা পাঠিয়েছে আর প্রাণ হারিয়েছে সবচেয়ে বেশি সেনা।’

নরেন্দ্র মোদি বলেন, ‘জাতিসংঘের আদর্শ আর ভারতের মৌলিক আদর্শ একই রকম। জাতিসংঘ মিলনায়তনে বহুবার প্রতিধ্বনিত হয়েছে বাশুদেব কুটুমবাকাম (বিশ্ব একটি পরিবার)। ভারত সবসময়ই বিশ্বের মঙ্গলের কথা ভেবেছে।’ ভিডিও লিঙ্কের মাধ্যমে দেওয়া বক্তব্যে নরেন্দ্র মোদি বলেন, ভারতের ১৩০ কোট জনগণ এখনও জাতিসংঘের আদর্শের প্রতি বিশ্বাস রাখে তবে বর্তমান যুগে প্রাসঙ্গিক থাকতে বিশ্ব সংস্থাটিতে পরিবর্তন আনা প্রয়োজন। তিনি বলেন, জাতিসংঘে সংস্কার প্রয়োজন আর সেই সংস্কার কখন হবে তার অপেক্ষায় আছে ভারত।

জাতিসংঘের সিদ্ধান্ত গ্রহণকারী সর্বোচ্চ ফোরাম নিরাপত্তা পরিষদ। কেবল এই ফোরামের নেওয়া সিদ্ধান্ত মানতে আইনগতভাবে বাধ্য সব সদস্য দেশ। ১৫ সদস্যের ফোরামটির স্থায়ী সদস্য পাঁচটি দেশ হলো যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, চীন, রাশিয়া এবং ফ্রান্স। কেবল এই দেশগুলোরই যে কোনও সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে ভেটো দেওয়ার ক্ষমতা রয়েছে।

ভারত এখন পর্যন্ত সাতটি মেয়াদে নিরাপত্তা পরিষদের অস্থায়ী সদস্য হিসেবে ভূমিকা রেখেছে। ২০২১ সালের ১ জানুয়ারি থেকে দুই বছরের জন্য আরেক মেয়াদের জন্যও ইতোমধ্যে নির্বাচিত হয়েছে দেশটি। অস্থায়ী সদস্য হিসেবে ভূমিকা রাখলেও এবার স্থায়ী সদস্য হওয়ার জোরালো আকাঙ্ক্ষা প্রকাশ করলেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী।

error: Content is protected !!