‘লকডাউন শিথিলে ইউরোপে সংক্রমণ বেড়েছে’

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বলছে লকডাউওন তোলে দেয়াতে করোনার সংক্রামন বেড়েছে ইউরোপ অঞ্চলে। এই মহাদেশের অন্তত ৩০টি দেশে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা পুনরায় বাড়তে শুরু করেছে।

২৬ জুন, বিবিসির এক প্রতিবেদনে এ তথ্যটি জানায়। করোনাভাইরাস সংক্রমণের শুরুর দিকেই এর হাত থেকে রক্ষার সবচেয়ে কার্যকর উপায় হিসেবে দেখা হয়েছিল লকডাউনকে। পৃথিবীর নানা দেশে এটা কার্যকরও করেছে। তবে গত মাস থেকে অনেক দেশ লকডাউন উঠিয়ে দিয়েছে, যার ফলে এর প্রকোপ আবারো বাড়ছে। 

২৫ জুন, এক সংবাদ সম্মেলনে হু’র আঞ্চলিক পরিচালক ডক্টর হান্স হেনরি ক্লুজ জানান, সম্প্রতি সুইডেন, আরমেনিয়া, আজারবাইজান, ইউক্রেন, কসোভো সহ ইউরোপের ১১টি অঞ্চলে করোনাভাইরাস সংক্রমণের ‘ উল্লেখযোগ্য পুণ্রুত্থান ঘটেছে। অন্তত ৩০টি দেশে সার্বিক করোনা সংক্রমণ বেড়েছে। এর মধ্য দিয়ে লকডাউন শিথিলের ফলে করোনার সংক্রমণ বাড়বে, পূর্বে ঘোষিত তার এমন আশঙ্কা সত্যে হয়েছে বলে তিনি জানান।

উদ্ভূত পরিস্থিতি প্রসঙ্গে হান্স বলেন, করোনার এই সংক্রমণ বৃদ্ধি যদি নিয়ন্ত্রণ করা না হয়, তাহলে এটি স্বাস্থ্যব্যবস্থাকে ডুবার ধারে নিয়ে যাবে। বর্তমান পরিস্থিতি তুলে ধরে হান্স বলেন, ইদানিং প্রতিদিনই প্রায় ২০ হাজার করে নতুন করোনা রোগী শনাক্ত হচ্ছে এবং প্রায় ৭শ’ করে মানুষ মারা যাচ্ছে। গত ২ সপ্তাহে ইউরোপের বেশিরভাগ দেশেই করোনা সংক্রমণের মাত্রা বেড়েছে।

তবে এসময় পুনরুত্থান ঘটলেও গ্রীষ্মে বেশিরভাগ দেশেই করোনা পরিস্থিতি স্তিমিত হবে বলে আশা করছে হু। কিন্তু, আগত  শীত মৌসুমে  ইনফ্লুয়েঞ্জা, নিউমোনিয়া ও অন্যান্য  ফ্লুউর সাথে সাথে করোনাও পুনরায় বাড়তে পারে।  যেহেতু এখনও পর্যন্ত করোনার কার্যকর কোনো ভ্যাকসিন উদ্ভাবিত হয়নি, তাই এ ব্যাপারে প্রস্তুত থাকার আহ্বান জানিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। 

সংবাদ মাধ্যমে জানা যায়, এখন পর্যন্ত ইউরোপে ২৬ লাখেরও বেশি মানুষের করোনা শনাক্ত হয়েছে। সরকারি হিসবে মৃত্যু হয়েছে ১ লাখ ৯৫ হাজারেরও বেশি।

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

error: Content is protected !!