যুক্তরাষ্ট্রে বর্ণবাদবিরোধী বিক্ষোভে নিহতের ঘটনায় মুখোমুখি ট্রাম্প-বাইডেন

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে বর্ণবাদবিরোধী বিক্ষোভ নতুন মোড় নিয়েছে। ওরেগন অঙ্গরাজ্যে বর্ণবাদবিরোধী আন্দোলনে একজন কৃষ্ণাঙ্গ ব্যক্তির মৃত্যুর ঘটনায় প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ও আসন্ন নির্বাচনে তাঁর ডেমোক্র্যাট দলীয় প্রতিদ্বন্দ্বী জো বাইডেন মুখোমুখি অবস্থান নিয়েছেন।

ওরেগনের পোর্টল্যান্ড শহরে গত শনিবার প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের সমর্থকদের সঙ্গে বর্ণবাদবিরোধী ব্ল্যাক লাইভস ম্যাটার আন্দোলনের কর্মীদের ভয়াবহ সংঘর্ষ হয়। এতে গুলিবিদ্ধ হয়ে এক ব্যক্তি নিহত হন।

কিছুদিন ধরে পোর্টল্যান্ডের রাজপথে টানা বিক্ষোভ চলছে। গত ২৫ মে শ্বেতাঙ্গ পুলিশের গুলিতে কৃষ্ণাঙ্গ জর্জ ফ্লয়েড নিহতের পর পুলিশি নিপীড়ন ও বর্ণবাদের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ বিক্ষোভের কেন্দ্রবিন্দুতে পরিণত হয়েছে শহরটি। জর্জ ফ্লয়েড হত্যার প্রতিবাদে বিক্ষোভটি যুক্তরাষ্ট্র ছাড়িয়ে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে ছড়িয়ে পড়েছে। গত জুলাই মাসে পোর্টল্যান্ডে সেনাবাহিনী পাঠান ট্রাম্প। সহিংসতা বন্ধের জন্য এ উদ্যোগ নেওয়ার কথা জানানো হয়। টানা তৃতীয় শনিবার সর্বশেষ ট্রাম্প সমর্থকদের সঙ্গে এই সংঘর্ষ হলো।

পোর্টল্যান্ডের ডেমোক্র্যাট দলীয় মেয়র টেড হুইলার ‘তাঁর শহরে হত্যা ও ধ্বংসকে প্রশ্রয় দিয়েছেন’ দিয়েছেন বলে অভিযোগ করেছেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প। এদিকে জো বাইডেন বলেছেন, প্রেসিডেন্ট ‘অবিরাম সংঘাতকে উসকানি দিয়ে আসছেন।’

এক টুইটে ট্রাম্প বলেন, পোর্টল্যান্ডের ডেমোক্র্যাট মেয়র প্রশাসক হিসেবে ব্যর্থ। তিনি থাকলে পোর্টল্যান্ড আর মাথা তুলে দাঁড়াতে পারবে না। মেয়র তো নিজের বেসমেন্টে গিয়ে বসে আছেন। নেতৃত্ব দেওয়া দূরে থাক, তিনি একটা কথাও বলতে পারছেন না।

ডেমোক্র্যাট নেতা বাইডেন বিবৃতিতে বলেছেন, আইন ও শৃঙ্খলারক্ষার কথা বলে ট্রাম্প দেখাতে চান, তিনি খুব শক্তিশালী নেতা। কিন্তু ট্রাম্পের সমর্থকরা ঝামেলা চাইছিল। তিনি তো তাঁদের কিছুই বললেন না। এটাই দেখিয়ে দিচ্ছে কতটা দুর্বল তিনি।

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

error: Content is protected !!