যুক্তরাষ্ট্রে ডাকাতের গুলিতে নিহত তানজিম সিয়ামের দাফন সম্পন্ন

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বোস্টনে ডাকাতের গুলিতে নিহত যুবক তানজিম সিয়ামের দাফন সম্পন্ন হয়েছে। স্থানীয় ২৬ আগস্ট সকালে ম্যাসাচুসেটসের টাউন্টনের সিডার কবরস্থানে তাকে দাফন করা হয়।

ম্যাসাচুসেটস জেনারেল হাসপাতালে দীর্ঘ চল্লিশ দিন জীবনের সঙ্গে পাঞ্জা লড়ে গত ২২ আগস্ট শনিবার সকাল ১০টার দিকে হাসপাতালেই মারা যান সিয়াম। ১৪ জুলাই রাত ৯টার দিকে বোস্টনের সন্নিকটে রক্সবুরিতে বাংলাদেশি মালিকানাধীন একটি কনভেনিয়েন্স স্টোরে ঢুকে তানজিম সিয়ামকে (২৪) অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে বিভিন্ন ধরনের জিনিসপত্র ও অর্থ হাতিয়ে নেয় স্টেফুন সামুয়্যেল (২৫) নামের এক দুর্বৃত্ত।

দোকান থেকে বেরিয়ে যাবার সময় দুর্বৃত্ত স্টেফুন সিয়ামের মাথায় দুটি গুলি করে পালিয়ে যায়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে গুরুতর আহত সিয়ামকে দ্রুত ম্যাসাচুসেটস জেনারেল হাসপাতালে পাঠিয়ে দেন।

বুধবার সকালে ম্যাসাচুসেটসের টাউন্টনের সিডার কবরস্থানে তানজিম সিয়ামকে শেষ বিদায় জানাতে তার জানাজা নামাজে অংশ নেন বোস্টন ও পার্শ্ববর্তী শহরের প্রবাসী বাংলাদেশিরা। বিভিন্ন সামাজিক, সাংস্কৃতিক, রাজনৈতিক দলের নেতাকর্মী ও কনভেনিয়েন্স স্টোর মালিক সমিতির সদস্যারা জানাজা নামাজে অংশ নেন।

উল্লেখ্য, শিক্ষার্থী ভিসায় এ বছরই যুক্তরাষ্ট্রে পাড়ি জমান তানজিম সিয়াম। পড়াশোনা শুরুর আগে পরিবারকে সহায়তার উদ্দেশে চার মাস আগে বোস্টনের সন্নিকটে রক্সবুরিতে এম অ্যান্ড আর কনভেনিয়েন্স স্টোর নামে বাংলাদেশি মালিকানাধীন একটি দোকানে কাজ শুরু করেন তিনি। গত ১৪ জুলাই গুলিবিদ্ধ হবার পর থেকেই হাসপাতালে কোমায় ছিলেন সিয়াম।

এদিকে, ডাকাতের গুলিতে গুরুতর আহত তানজিম সিয়ামকে দেখতে গত ৩ আগস্ট বাংলাদেশ থেকে ছুটে আসেন তানজিমের মা বাবাসহ দুই সহোদর। বোস্টনের মূলধারার রাজনীতিবিদদের নির্দেশে বাংলাদেশি এ দোকানকর্মীকে বাঁচানোর হাসপাতালের চিকিৎসকরা আপ্রাণ চেষ্টা চালান। নিহত তানজিম সিয়ামের বাড়ি বাংলাদেশের নোয়াখালী জেলায়।

বোস্টনের প্রবাসী বাংলাদেশিদের অব্যাহত আন্দোলনের মুখে তিন সপ্তাহ পর বোস্টন পুলিশ স্টেফুন সামুয়্যেলকে (২৫) গ্রেফতার করেন। গ্রেফতার স্টেফুনের বিরুদ্ধে আগ্নেয়াস্ত্রের মাধ্যমে সশস্ত্র ডাকাতি ও খুনের অভিপ্রায় নিয়ে সশস্ত্র হামলার অভিযোগ গঠন করা হয়েছে। বোস্টনে বাংলাদেশি মালিকানাধীন কনভেনিয়েন্স স্টোরে সশস্ত্র ডাকাতির এ ঘটনায় বোস্টনের বাংলাদেশি ব্যবসায়ীরা এখনও চরম আতঙ্কের মধ্যে কাটাচ্ছেন।

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

error: Content is protected !!