November 28, 2020

মাই পেটারসন. লাইফ

ভয়েস অফ দ্যা কমিউনিটি

মেসির উদ্দেশ্যে সুয়ারেজের আবেগঘন বার্তা: ‘দেখিয়ে দাও তুমি এক নম্বর’

টানা ছয় বছর বার্সেলোনার জার্সিতে একসঙ্গে কাটানোর কারণে লুইস সুয়ারেজ এবং লিওনেল মেসি হয়ে উঠেছেন একে অপরের খুব কাছের বন্ধু। অর্ধযুগ বন্ধুর সঙ্গে খেলা মেসি আর মাঠে পাশে পাবেন না সুয়ারেজকে। তাই এক আবেগঘন বার্তা জানিয়েছিলেন প্রিয় বন্ধুর উদ্দেশ্যে। এবার সেই বার্তার উত্তর দিয়েছেন সুয়ারেজও।

মেসির বার্তার পরে ইন্সটাগ্রামেই এর প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন সুয়ারেজ। তার বার্সায় যোগ দেওয়ার শুরুর দিন থেকে পাশে থাকায় কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করছেন। পাশাপাশি প্রাণের বন্ধুকে দারুণ একটি পরামর্শও দিয়েছেন তিনি।
সুয়ারেজ লিখেছেন, ‘বন্ধু, বার্তার জন্য তোমাকে ধন্যবাদ। তুমি যেভাবে পাশে থাকছ, আমার ও আমার পরিবারের জন্য প্রথম দিন থেকেই তুমি যা কিছু করেছ, তার জন্য তোমাকে ধন্যবাদ। আমি মানুষ মেসির প্রতি সবসময় কৃতজ্ঞ থাকব যে কিনা মজার ও আবেগপ্রবণ, কারণ সবাই খেলোয়াড় (মেসিকে) চেনে। আমি তোমাকে যা বলেছি তা ভুলে যেও না: নিজেকে উপভোগ করে যাও, দেখিয়ে দিতে থাকো তুমি এক নম্বর।… বন্ধু, তোমাকে খুব ভালবাসি এবং তোমাদের পাঁচ জনকে (মেসি, তার স্ত্রী ও তাদের তিন সন্তান) মিস করব।’

বার্সার নতুন কোচ রোনাল্ড কোম্যান এসেই জানিয়ে দিয়েছিলেন, তার পরিকল্পনায় সুয়ারেজের জায়গা নেই। তখনই বুঝা যাচ্ছিল, ক্লাব ছাড়তে হবে উরুগুয়ান তারকাকে। কিন্তু যে পন্থায় তাকে ‘বের করে দেওয়া’ হলো সেটা মানতে পারছেন না লিওনেল মেসি।

বিদায়ী সংবাদ সম্মেলনে বারবার কাঁদতে দেখা গেছে সুয়ারেজকে। কান্না বারবার তার বক্তবকে থামিয়ে দিচ্ছিল। একদিন আগে অনুশীলনে সতীর্থদের কাছ থেকে বিদায় নিতে গিয়েও কেঁদেছেন উরুগুয়ান তারকা। গাড়ি করে ফিরতে ফিরতেও কাঁদতে দেখা গেছে তাকে। হয়তো কদিনের তিক্ততাই এতো আবেগী করে তুলেছিল!

প্রিয় বন্ধুর এমন বিশাদের বিদায় একেবারেই মানতে পারিনি মেসি। তাই ইনস্টাগ্রামে একটা পোস্ট করেছেন আর্জেন্টাইন ফরোয়ার্ড। যেখানে সুয়ারেজকে বিদায় করার পন্থা নিয়ে কড়া ভাষায় সমালোচনা করেছেন মেসি।

লিখেছেন, ‘আমি বেশ কয়েক দিন ধরেই আভাস পাচ্ছিলাম এমন কিছু হতে যাচ্ছে। তবু আজ যখন লকার রুমে ঢুকলাম ব্যাপারটার গুরুত্ব পুরোপুরি টের পেলাম। তোমার সঙ্গে প্রতিদিন কাটাতে না পারা কী কঠিনই না হবে! সেটা মাঠে যেমন, মাঠের বাইরেও। তোমার অভাব খুব ভালোভাবে টের পাব আমি। কতগুলো বছর, কত শত মাতে (দক্ষিণ আমেরিকান পানীয়), কত লাঞ্চ, ডিনারের স্মৃতি…প্রতিটি দিন একসঙ্গে কাটানো সময়ের অনেক স্মৃতি যা ভোলা যাবে না কখনো। তোমাকে অন্য কোনো জার্সিতে দেখাটা খুব অদ্ভুত ব্যাপার হবে, আর তোমার মুখোমুখি হওয়ার ব্যাপারটা তো আরও বেশি।’

মেসি লিখেছেন, ‘ক্লাবের ইতিহাসের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ খেলোয়াড় হিসেবেই বিদায়টা প্রাপ্য ছিল তোমার, ব্যক্তিগত ও দলীয় শিরোপা জয়ের আনন্দের মধ্যে। যেভাবে তোমাকে ক্লাব থেকে বের করে দিল ওরা, এটা তোমার প্রাপ্য ছিল না কোনোভাবেই। কিন্তু সত্যিটা হলো, সাম্প্রতিক সময়ে (ক্লাবে) যা হচ্ছে, তাতে আমি কোনো কিছুতেই আর অবাক হই না। নতুন যাত্রায় তোমার জন্য শুভকামনা। তোমাকে খুব ভালোবাসি, অনেক অনেক ভালোবাসি। খুব শিগগিরই দেখা হবে, বন্ধু।’

error: Content is protected !!