মার্কিন নির্বাচন: বুধবার প্রথম মুখোমুখি হচ্ছেন ট্রাম্প-বাইডেন

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের আর বাকি মাত্র ৩৫ দিন । মঙ্গলবার রাত পোহালেই দুই প্রেসিডেন্ট প্রার্থীর মধ্যে শুরু হবে বহুল প্রতীক্ষিত বিতর্ক। বাংলাদেশ সময় আগামীকাল বুধবার সকাল ৭টা এবং যুক্তরাষ্ট্রের স্থানীয় সময় মঙ্গলবার রাত ৯টায় ওহাইও অঙ্গরাজ্যের ক্লিভল্যান্ডের কেজ ওয়েস্টার্ন রিজার্ভ ইউনিভার্সিটিতে ট্রাম্প ও বাইডেনের মধ্যে প্রথম আনুষ্ঠানিক বিতর্ক শুরু হবে। সিএনএন, ফক্স নিউজ, সিবিএস, এবিসি, সি-স্প্যান, এনবিসি ও এমএনবিসি সরাসরি সম্প্রচার করবে এই বিতর্ক অনুষ্ঠানটি।

ফক্স নিউজ সানডের উপস্থাপক ক্রিস ওয়ালেস বিতর্ক অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করবেন। দ্বিতীয় বারের মতো কোনো প্রেসিডেন্সিয়াল বিতর্ক অনুষ্ঠানে সঞ্চালকের ভূমিকা পালন করবেন ক্রিস। ২০১৬ সালের নির্বাচনে তিনি ট্রাম্প ও হিলারির মধ্যকার বিতর্ক অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেছিলেন। এদিকে, নির্বাচন সামনে রেখে কাল প্রথম বর্তমান ক্ষমতাসীন রিপাবলিকান প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প এবং সাবেক ভাইস প্রেসিডেন্ট ও ডেমোক্রেটিক পার্টির প্রার্থী জো বাইডেন মুখোমুখি হবেন। দুই প্রার্থীর বিতর্ক দেখার জন্য অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছেন দেশটির জনগণ।

দুই প্রেসিডেন্ট প্রার্থীর আসন্ন বিতর্ককে হঠাত্ করে পেছনে ফেলে দিয়েছে ট্রাম্পের ৭৫০ ডলারের আয়কর প্রদানের ঘটনা। রোববার এ ঘটনা ছিল সবার মুখে মুখে। অনেকে এ ঘটনাকে নজিরবিহীন উল্লেখ করে বলেছেন, ৫৩ মিলিয়ন ডলার আয় করেও যদি একজন প্রেসিডেন্ট মাত্র ৭৫০ ডলার আয়কর দেন তাহলে যুক্তরাষ্ট্রের ভবিষ্যৎ কোন দিকে তা সহজেই অনুমান করা যায়। তবে ট্রাম্পের এই ঘটনা ৩ নভেম্বরের নির্বাচনে কতটুকু প্রভাব ফেলবে তা নিয়ে চলছে নানান হিসাবনিকাশ। ট্রাম্পের সমর্থকরা মনে করেন, এ ধরনের ঘটনা কোনো প্রভাব ফেলবে না। আবার বাইডেনের সমর্থকরা বলছেন, এবারের নির্বাচনে ট্রাম্পের দুঃশাসনের জবাব দেবেন ভোটাররা। তারা গত চার বছরে হারিয়ে যাওয়া যুক্তরাষ্ট্রের গণতন্ত্র ও মূল্যবোধকে ফিরিয়ে আনবেন।

রিপাবলিকান পার্টি: বর্তমান প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প হচ্ছেন রিপাবলিকান পার্টির প্রার্থী – যা একটি রক্ষণশীল রাজনৈতিক দল।

ট্রাম্প ২০১৬ সালের নির্বাচনে জিতে ক্ষমতাসীন হয়েছেন এবং তিনি এবার আরো চার বছরের জন্য পুননির্বাচিত হবার লড়াইয়ে নেমেছেন।

রিপাবলিকান পার্টি ‘গ্র্যান্ড ওল্ড পার্টি’ নামেও পরিচিত। সাম্প্রতিককালে রিপাবলিকান পার্টির নীতি ছিল করের হার কমানো, বন্দুক রাখার অধিকার এবং অভিবাসনের ওপর কঠোর বিধিনিষেধ আরোপের পক্ষে।

সাধারণভাবে দেখা যায়, আমেরিকার অপেক্ষাকৃত গ্রামীণ এলাকাগুলোতে রিপাবলিকান পার্টির সমর্থন বেশি জোরালো।

রিপাবলিকান পার্টির পূর্বতন প্রেসিডেন্টদের মধ্যে আছেন জর্জ ডব্লিউ বুশ, রোনাল্ড রেগান এবং রিচার্ড নিক্সন।
.
ডেমোক্র্যাটিক পার্টি: যুক্তরাষ্ট্রের রাজনীতিতে ডেমোক্র্যাটিক পার্টি হচ্ছে উদারনৈতিক রাজৗনৈতিক দল। এবারের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে তাদের প্রার্থী জো বাইডেন।

তিনি একজন অভিজ্ঞ রাজনীতিবিদ এবং বারাক ওবামা যখন আট বছর যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ছিলেন, তখন বাইডেনই ছিলেন তার ভাইস প্রেসিডেন্ট।

ডেমোক্র্যাটিক পার্টি পরিচিত নাগরিক অধিকার, অভিবাসন, এবং জলবায়ু পরিবর্তনের মতো বিষয়ে তার উদারনৈতিক অবস্থানের জন্য। তারা মনে করে, স্বাস্থ্য বীমার সুযোগ দেবার মতো জনগণের জীবনের বিভিন্ন ক্ষেত্রে সরকারের আরো বড় ভূমিকা পালন করা উচিত।

আমেরিকার শহর অঞ্চলগুলোতে ডেমোক্যাটিক পার্টির সমর্থন জোরালো বলে দেখা যায়। সাবেক ডেমোক্র্যাটিক প্রেসিডেন্টদের মধ্যে আছেন জন এফ কেনেডি, বিল ক্লিনটন এবং বারাক ওবামা।

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

error: Content is protected !!