ভারতে করোনার চিকিৎসা হবে আর্য়ুবেদিক ওষুধে

বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির চরম উৎকর্ষের যুগে সমগ্র বিশ্ববাসীর একটাই প্রত্যাশা.. করোনা থেকে মুক্তি। কিন্তু বাস্তবতা হচ্ছে, এই রোগের প্রতিষেধক বা ওষুধ এখনো আবিষ্কৃত হয়নি। যখন প্রকৃতির নানাবিধ খেয়ালকে অনেকটাই নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব হয়েছে, তখন সাধারণভাবে প্রশ্ন আসে, ভাইরাসটির বিরুদ্ধে কার্যকর ওষুধ বা প্রতিষেধক তৈরির কাজটি করতে এত সময় লাগছে কেন? তবে প্রাচীন ভারতীয় আয়ুর্বেদ শাস্ত্র মতে চিকিৎসা দিয়ে নিজ দেশের অনেক কোভিড-১৯ পজেটিভ রোগীকে সুস্থ করে তুলেছে শ্রীলঙ্কা। এবার সেই পথেই হাঁটার সিদ্ধান্ত নিয়েছে ভারতও। তবে শুধু আয়ুর্বেদ নয়, যোগবিজ্ঞান ও হোমিওপ্যাথির মতো আয়ুর্বেদ শাস্ত্রের অন্য বিভাগগুলোকেও সবুজ সংকেত দিয়েছে দেশটির কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়।

মঙ্গলবার ভারতের কেন্দ্রীয় সরকারের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় এই মর্মে একটি বিজ্ঞপ্তি জারি করেছে। যাতে বলা হয়, শুধুমাত্র করোনা প্রতিরোধই নয়, করোনা পজেটিভ রোগীর চিকিৎসায়ও আয়ুর্বেদ, যোগ, ইউনানি,হোমিওপ্যাথি পদ্ধতি ব্যবহার করা হবে। যার অর্থ, এই সকল শাখার চিকিৎসকরা চাইলেই এখন কোভিড-১৯ পজেটিভ রোগীর চিকিৎসা করতে পারবেন।

২০১৯ সালের ভারতের ‘ন্যাশনাল মেডিক্যাল কাউন্সিল’ আইন অনুযায়ী নেভেল করোনা রোগীর কোয়ারেন্টিনে থাকা অবস্থায় চিকিৎসা ও গবেষণা করা যায় আয়ুর্বেদ পদ্ধতিতে। তা সে রোগীর শরীরে করোনার উপসর্গ থাকুক বা না থাকুক।

কেন্দ্রীয় সরকারের এমন গুরুত্বপূর্ণ নির্দেশের পর পশ্চিমবঙ্গের আর্য়ুবেদ চিকিৎসক পুলককান্তি কর বলেছেন, ‘কেন্দ্রীয় সরকারের এমন নির্দেশিকা প্রকাশের পর আর্য়ুবেদ মতে কোভিড-১৯ চিকিৎসায় আর কোনও বাধা রইল না। আমাদের আশা, রাজ্য আমাদের করোনা চিকিৎসায় যুক্ত করবে। গবেষণার নতুন দরজা খুলে দেবে।’

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ও আক্রান্তদের চিকিৎসায় এখনও পর্যন্ত নির্দিষ্ট কোনও পথ খুঁজে পায়নি আধুনিক চিকিৎসা বিজ্ঞান। এমন কঠিন সময়ে আশার আলো দেখিয়েছে ভারতের আর্য়ুবেদ চিকিৎসা।

উল্লেখ্য, শ্রীলঙ্কায় অতি সংকটজনক করোনা রোগী ছাড়া বাকিদের আর্য়ুবেদিক ওষুধ প্রয়োগ করেই চিকিৎসা করা হচ্ছে। সুস্থও হয়ে উঠেছেন অনেকে। সূত্র: আনন্দবাজার পত্রিকা।

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

error: Content is protected !!