ভারতকে কালো তালিকায় রাখার আহ্বান মার্কিন প্যানেলের

ধর্মীয় স্বাধীনতা ‘প্রচণ্ডভাবে ক্ষুণ্ণ’ হওয়ায় ভারতকে কালো তালিকায় রাখার আহ্বান জানিয়েছে মার্কিন সরকারের একটি প্যানেল।

ইউএস কমিশন অন ইন্টারন্যাশনাল রিলিজিয়াস ফ্রিডম (ইউএসসিআইআরপি) তাদের বার্ষিক প্রতিবেদনে মঙ্গলবার এ আহ্বান জানিয়েছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ২০১৯ সালে ভারতে ধর্মীয় স্বাধীনতা প্রচণ্ডভাবে ক্ষুণ্ণ হয়েছে। সংখ্যালঘুদের ওপর নির্যাতন বেড়েছে। আহ্বানে বলা হয়, ভারতে ধর্মীয় স্বাধীনতা না বাড়লে দেশটিকে ‘উদ্বেগজনক দেশের তালিকায়’ রাখা উচিত।

আল-জাজিরার প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, দ্বিপক্ষীয় এই প্যানেল প্রতি বছর এ বিষয়ে পরামর্শ দিলেও নীতিগত কোনো সিদ্ধান্ত নেয় না। তাই তাদের পরামর্শ মার্কিন স্টেট ডিপার্টমেন্ট শুনবে কি না, তা নিয়ে প্রশ্ন আছে।

ভারতে নাগরিকত্ব আইন যেভাবে সংশোধন করা হয়েছে, ফেব্রুয়ারিতে দেশটি সফরের সময় তা নিয়েও কথা বলেননি ট্রাম্প। বরং তিনি বলে যান, মোদি সরকার ধর্মীয় স্বাধীনতায় বিশ্বাস রাখছে!

ট্রাম্প যখন এমন মন্তব্য করেন, তখন দিল্লিতে রীতিমতো দাঙ্গা হয়েছে। হিন্দু-মুসলিম মিলিয়ে ৫৩ জন মানুষ মারা গেছেন। যাদের অধিকাংশই মুসলিম। সম্প্রতি করোনার অজুহাতে মুসলমিদের ওপর নির্যাতন বেদেছে। করোনা ছড়িয়ে দেওয়ার অভিযোগে তাবলিগ জামাতের কয়েক হাজার সদস্যকে কোয়ারেন্টিনে রাখা হয়েছে।

প্রসঙ্গত, গত কয়েক বছরে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গে ব্যক্তিগত সম্পর্ক থেকে শুরু করে কূটনৈতিক সম্পর্ক পর্যন্ত উন্নত করেছেন মোদি।

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

error: Content is protected !!