বাংলাদেশে করোনায় মৃত ৫০ ছুঁয়েছে, শনাক্ত আরও ২১৯

বাংলাদেশে নতুন করে ২১৯ জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। এ নিয়ে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা দাঁড়াল ১ হাজার ২৩১ জনে। গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ৪ জন মৃত্যুবরণ করেছেন। দেশে মৃতের সংখ্যা দাঁড়ালো ৫০ জনে। বুধবার (১৫ এপ্রিল) দুপুরে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নিয়মিত অনলাইন ব্রিফিংয়ে এ তথ্য জানান স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক।

নতুন মৃতদের মধ্যে মারা যাওয়াদের মধ্যে তিন জন পুরুষ এবং এক জন নারী। নতুন করে মারা যাওয়া চার জনের মধ্যে ৭০ বছরের বেশি বয়স ২ জনের। আর ৫০ বছর একজন রয়েছেন যিনি চিকিৎসক মইনউদ্দিন। তিনি ১৫ই এপ্রিল কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান।

এছাড়া ৩৫-৪০ বছরের মধ্যে একজন। তবে কোভিড-১৯ ছাড়াও তিনি ক্যান্সার আক্রান্ত ছিলেন।

গত ২৪ ঘণ্টায় ২০৪৮টি নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। মোট ১৭৪০ টি নমুনা পরীক্ষার পর এই সংখ্যা পাওয়া যায়।

ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব ল্যাবরেটরি মেডিসিন ও রেফারেল সেন্টারের রিপোর্টটি যথাসময়ে হাতে না পাওয়ার কারণে গতকালের তুলনায় আজকের পরীক্ষার সংখ্যা কম বলেও ব্রিফিংয়ে জানানো হয়। গত ২৪ ঘণ্টায় আইসোলেশন রয়েছেন ৭১ জন। এনিয়ে মোট ৪৩৩ জন আইসোলেশনে রয়েছেন। সারা দেশে ৬৪ জেলার সব উপজেলা প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনের জন্য প্রস্তুত করা হয়েছে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নিয়মিত ব্রিফিংয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় আরো ৭ জন সুস্থ্য হয়েছেন এবং এনিয়ে মোট ৪৯ জন সুস্থ্য হয়েছে।

নারায়ণগঞ্জ, মিরপুর, বাসাবো এলাকায় আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে যাচ্ছে। নতুন করে গাজীপুর, ময়মনসিংহ ও কেরানীগঞ্জেও বেশি পরিমাণে আক্রান্ত হচ্ছে। এসব এলাকায় লকডাউন কঠোরভাবে কার্যকরের কথা জানানো হয়।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী জানান, আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে যাওয়ার কথা মাথায় রেখে বসুন্ধরা কনভেনশন সেন্টারে ২০০০ শয্যা আগামী কয়েক দিনের মধ্যেই প্রস্তুত হয়ে যাবে। এছাড়া ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনেও ১৩০০ শয্যা প্রস্তুতের কাজ চলছে বলে জানান স্বাস্থ্যমন্ত্রী।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক আবুল কালাম আজাদ ব্রিফিংয়ে বলেন, সবেচয়ে বেশি আক্রান্ত হয়েছে ঢাকায়। সেখানে মোট ৫৭জন কোভিড-১৯ এর রোগী শনাক্ত করা হয়েছে। এর পরেই আছে নারায়নগঞ্জ। আর দিনাজপুরে ৭ জনের মধ্যে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ পাওয়া গেছে। যারা সবাই ঢাকা ও নারায়নগঞ্জ থেকে দিনাজপুরে গেছে।

তিনি বলেন, নমুনা সংগ্রহ ও পরীক্ষার সংখ্যা আগামী কয়েক দিনে আরো বাড়ানো হবে। আর এর ফলে পুরো বাংলাদেশের চিত্র পাওয়া যাবে।

আর তখন দেশের কোন অঞ্চলে কী ধরণের ব্যবস্থা নিতে হবে তা বোঝা যাবে এবং সে অনুযায়ী পদক্ষেপ নিয়ে কোভিড-১৯ এর সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে আনা যাবে।

তিনি বলেন, যারা সংক্রমণের শিকার হবেন তাদের মধ্যে অধিকাংশের লক্ষণ দেখা যাবে না। কিছুর মধ্যে মৃদু সংক্রমণ থাকবে। কিন্তু যারা বয়স্ক বা অন্য স্বাস্থ্য সমস্যা আছে তারা মারাত্মক পরিস্থিতির মুখে পড়তে পারেন।

এতোদিন জানতাম, ঢাকায় নং ৫৭টি। তার পরে নারায়নগঞ্জ এপিসেন্টার। এখন দিনাজপুর ৭টি। এরা সবাই ঢাকা- নারায়নগঞ্জ থেকে দিনাজপুরে গেছে।

বুধবার বিশ্বব্যাপী এ ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ছাড়িয়েছে ২০ লাখ। এছাড়া এতে প্রাণ হারিয়েছেন ১ লাখ ২৬ হাজার ৭৫৪ জন। অন্যদিকে সুস্থ হয়ে ঘরে ফিরে ফিরেছেন ৪ লাখ ৮৪ হাজার ৫৯৭ জন।

 

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

error: Content is protected !!