বাংলাদেশে অন-অ্যারাইভাল ভিসা পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত স্থগিত

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকা

মহামারী করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব পরিস্থিতিতে সব দেশের নাগরিকদের জন্য বাংলাদেশে আগমনী ভিসা (ভিসা অন-অ্যারাইভাল) পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত স্থগিত রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। এর আগে দফায় দফায় স্থগিতের মেয়াদ বাড়ানো হয়েছিল।

মঙ্গলবার (১৬ জুন) স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সুরক্ষা সেবা বিভাগ থেকে স্পেশাল ব্রাঞ্চের অতিরিক্ত মহাপুলিশ পরিদর্শকের কাছে এ সংক্রান্ত এক নির্দেশনা পাঠানো হয়েছে। 

নির্দেশনায় বলা হয়েছে, শুধুমাত্র বিদেশি বিনিয়োগকারী ও ব্যবসায়ীদের বিদ্যমান ভিসা নীতিমালার আলোকে বাংলাদেশে আগমী ভিসা প্রদান করা যাবে। সেক্ষেত্রে বাংলাদেশে প্রবেশের সময় ভিসা প্রার্থীকে ৭২ ঘণ্টার মধ্যে ইস্যুকৃত পিসিআর কোভিড-১৯ মুক্ত সনদ (ইংরেজিতে অনুবাদ করা) এবং তিনি এদেশের একজন প্রকৃত বিনিয়োগকারী/ব্যবসায়ী মর্মে প্রয়োজনীয় প্রত্যয়ন ও এ সংক্রান্ত আনুষঙ্গিক কাগজপত্র ইমিগ্রেশন কাউন্টারে জমা দিতে হবে।

আগের নির্দেশনা অনুযায়ী, অন-অ্যারাইভাল ভিসা স্থগিতের মেয়াদ ছিল ১৫ জুন পর্যন্ত।

করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব রোধে প্রথমে গত ১৫ মার্চ থেকে ৩১ মার্চ পর্যন্ত বাংলাদেশে সব ধরনের অন-অ্যারাইভাল ভিসা স্থগিত ঘোষণা করে সরকার। এরপর বন্ধ হয়ে যায় বিমান যোগাযোগও। পরে সাধারণ ছুটির সঙ্গে তাল মিলিয়ে দফায় দফায় বিমান চলাচলের উপর নিষেধাজ্ঞার মেয়াদ বাড়ানো হয়। একই সঙ্গ বাড়ে অন-অ্যারাইভাল ভিসা স্থগিতের মেয়াদও।

এর আগে স্বাস্থ্যবিধি মেনে ১ জুন থেকে সীমিত পরিসরে অভ্যন্তরীণ রুটে বিমান চলাচল শুরু হয়।

প্রায় তিন মাস বন্ধ থাকার পর গতকাল থেকে সীমিত পরিসরে বাংলাদেশ থেকে আন্তর্জাতিক ফ্লাইট চালু হয়েছে। আন্তর্জাতিক ফ্লাইট চালু হলেও গন্তব্য মাত্র দুটি। লন্ডন আর দোহা। তাও আবার লন্ডন ফ্লাইট এখনই নয়। শুধু দোহা রুটেই পাখা মেলছে যাত্রিবাহী ফ্লাইট।

এর আগে নির্দেশনা জারি করা হয় বাংলাদেশে প্রবেশের প্রয়োজন হবে কোভিড-১৯ নেগেটিভ সনদ। দেশে প্রবেশের ৭১ ঘণ্টা আগে করোনা আক্রান্ত নন এমন সনদ নিয়ে আসতে হবে। আন্তর্জাতিক ফ্লাইট শুরুর প্রাক্কালে এমন আদেশ দিয়েছিলো বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ (বেবিচক)। 

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

error: Content is protected !!