‘বলিউডের অশ্লীলতায় ধর্ষণের রাজধানীতে পরিণত হয়েছে দিল্লি’

ক্রমবর্ধমান যৌন সহিংসতা বন্ধে ধর্ষককে জনসম্মুখে ফাঁসি বা রাসায়নিক প্রয়োগ করে খোজা বানিয়ে দেয়ার মতো কঠোরতর শাস্তি নিশ্চিত করা উচিৎ বলে মন্তব্য করেছেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান।

সোমবার (১৪ সেপ্টেম্বর) স্থানীয় সংবাদমাধ্যমকে দেয়া সাক্ষাতকারে তিনি এমন মন্তব্য করেন তিনি। গেল বুধবার লাহোরের মহাসড়কে গাড়িতে এক নারী গণধর্ষণের শিকার হয়। এ ঘটনার প্রতিবাদে ফুঁসে উঠেছে পুরো পাকিস্তান। জোরালো দাবি উঠেছে নারীর প্রতি যৌন সহিংসতার বন্ধের।

প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান বলেন, গাড়িতে গণধর্ষণের ঘটনা পুরো জাতিকে নাড়া দিয়েছে। কারণ ক্ষতিগ্রস্ত নারী কারো বোন বা মেয়ে। দেশটির পুলিশ প্রতিবেদন অনুযায়ী পাকিস্তানে যৌন অপরাধের ঘটনা ব্যাপকভাবে বেড়েছে। বিষয়টিকে বিস্ময়কর বলে আখ্যা দিয়েছেন ইমরান খান।

তিনি বলেন, ধর্ষণকারীকে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দেয়া উচিৎ। আমার মতে তাদেরকে জনসম্মুখে ফাঁসি দেয়া উচিৎ। ধর্ষণকারী, শিশু নিপীড়নকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নিশ্চিত করতে হবে।

দুর্ভাগ্যবশত, ধর্ষককে প্রকাশ্যে সর্বোচ্চ শাস্তি দেয়ার বিষয়টি আন্তর্জাতিক মহল গ্রহণ করবে না। এ শাস্তি বাস্তবায়ন করলে ইউরোপীয় ইউনিয়ন থেকে আমাদের বাণিজ্যের ক্ষেত্রে যে জিএসপি-প্লাস সুবিধা দেয়া হয়েছে তা ক্ষতিগ্রস্ত হবে।

তিনি বলেন, অপরাধের শাস্তির নিয়ম অনুযায়ী ধর্ষককে রাসায়নিক বা সার্জিক্যালি খোজা করে দেয়া যায়। অনেক দেশে এটি বাস্তবায়ন হচ্ছে।

প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান বলেন, গাড়িতে ধর্ষণে অভিযুক্ত সন্দেহভাজন আবিদ আলী ২০১৩ সালেও গণধর্ষণে জড়িত ছিল। আমাদের উচিৎ এ ধরনের অপরাধীকে স্থায়ীভাবে খোজা করতে নতুন আইন প্রণয়ন করা।

তিনি আফসোস করে বলেন, যৌন নির্যাতনকারীর কোনো নথি দেশটিতে নেই। যার কারণে ইউরোপীয় দেশগুলো থেকে শিশু নির্যাতনকারীরা পাকিস্তানে প্রবেশ করে একই অপরাধ করছে।

শুধু পুলিশ নয়; যৌন নির্যাতনের বিরুদ্ধে সবাইকে লড়াইয়ে অংশ নিতে হবে। ইতিহাস বলছে, সমাজে যখন অশ্লীলতা বেড়ে যায় তখন, দুটি জিনিস ঘটে। যৌন অপরাধ বেড়ে যায় এবং পারিবারিক নিয়মনীতি ভেঙে পড়ে। বলেন ইমরান খান।

অশ্লীলতা বেড়ে যাওয়ায় ইংল্যান্ডে বিয়ে বিচ্ছেদের হার ৭০ শতাংশের কাছাকাছি বলে উদাহরণ দেন তিনি।

পশ্চিমাদেশগুলোর সঙ্গে তুলনা করে ইমরান খান বলেন, আমাদের পারিবারিক ব্যবস্থা এখনো ভালো আছে। আমাদের উচিৎ বিচার ব্যবস্থা এবং পরিবার নৈতিক মূল্যবোধ অক্ষত রাখা। কিন্তু পারিবারিক নৈতিক ব্যবস্থাপনা ভেঙে গেলে পুনরায় তা ঠিক করা হয়তো সম্ভব হবে না।

ইমরান খান বলেন, বলিউডের অশ্লীলতার কারণে নয়াদিল্লি ধর্ষণের রাজধানীতে পরিণত হয়েছে।

এর আগে, বুধবার রাতে পাঞ্জাবের লাহোরের শহরের পার্শ্ববর্তী মহাসড়ক দিয়ে দুই সন্তানকে নিয়ে গাড়ি চালিয়ে যাচ্ছিলেন ৩০ বছর বয়সী এক নারী। পথিমধ্যে নির্জন স্থানে গাড়ির জ্বলানি ফুরিয়ে যায়। তখন সহযোগিতার জন্য পুলিশকে ফোন করেন ওই নারী। পুলিশ পৌঁছানোর আগেই দুই ব্যক্তি ঘটনাস্থলে যায়। দুই সন্তানকে গাড়ি থেকে বের করে অস্ত্রের মুখে ওই নারীকে মহাসড়কে ধর্ষণ করে।

পালিয়ে যাওয়ার আগে ধর্ষকরা ওই নারীর স্বর্ণালঙ্কার এবং অর্থকড়ি নিয়ে যায় বলেও অভিযোগ করা হয়েছে।রোববার পাকিস্তানের পুলিশ জানিয়েছে, ঘটনায় জড়িত সন্দেহ একজনকে আটক করা হয়েছে। ঘটনাস্থল থেকে ফরেনসিক আলামত সংগ্রহ করা হয়েছে। মোবাইল ফোন ট্র্যাকিংয়ের মাধ্যমে সন্দেহভাজনকে আটক করা হয়।

স্থানীয় সংবাদমাধ্যম জানিয়েছে, সন্দেহভাজন ধর্ষণে জড়িত থাকার অভিযোগ অস্বীকার করে পুলিশের কাছে নিজেকে নির্দোষ দাবি করেছে।

ধর্ষণের খবর ছড়িয়ে পড়লে পাকিস্তানজুড়ে বিক্ষোভ শুরু হয়। পাঞ্জাব পুলিশের মহাপরিদর্শক ইনাম ঘানি জানিয়েছেন, ডিএনএ পরীক্ষার মাধ্যমে সন্দেহভাজন চিহ্নিত করা হয়েছে দুই ধর্ষণকারীকে।

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

error: Content is protected !!