পেছনের দরজা দিয়ে নিউইয়র্কে করোনা ঢুকেছে: কুমো

মহামারি করোনাভাইরাস চীন থেকে নিউইয়র্কে প্রবেশ করেনি, বরং ইউরোপ থেকে প্রবেশ করেছে। এমন তথ্য দিয়েছেন মার্কিন অঙ্গরাজ্যটির গভর্নর এন্ড্রু কুমো। শুক্রবার (২৪ এপ্রিল) এক ব্রিফিংয়ে তিনি এ মন্তব্য করেন।

কুমো বলেন, তার অঙ্গরাজ্যে ছড়ানো ভাইরাসের উৎস ইতালি হতে পারে। উহানে একটি প্রাদুর্ভাব শুরু হয়েছে এমন খবর আসতে শুরু করার এক মাসেরও বেশি সময় পর ২ ফেব্রুয়ারি চীন থেকে যুক্তরাষ্ট্রে ভ্রমণের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প আর ইউরোপ থেকে যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেন এর পরের মাসে।

কিন্তু ওই সময়ের মধ্যেই ভাইরাসটি যুক্তরাষ্ট্রজুড়ে ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়ে, গবেষণায় এমনটি দেখা গেছে বলে জানান তিনি।

তিনি আরো বলেন, চীনের ওপর ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা জারি করে আমরা সামনের দরজাটি বন্ধ করে দেই, যা ঠিক ছিল; কিন্তু আমরা পেছনের দরজাটা খোলা রাখি যা চীনে ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞা ছিল। কিন্তু অন্যান্য দেশে নিষেধাজ্ঞা ছিল না।

রয়টার্সের প্রতিবেদন বলছে, কখন এবং কীভাবে ভাইরাসটি প্রথম যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশ করেছিল এবং প্রেসিডেন্টে ট্রাম্প ও গভর্নর কুমোর মতো কর্মকর্তারা আরও আগে পদক্ষেপ নিয়ে আরও কিছু জীবন রক্ষা করতে পারতেন কিনা, এসব প্রশ্নে যুক্তরাষ্ট্রে যখন তীব্র বিতর্ক চলছে তখনই কুমোর কাছ থেকে এসব মন্তব্য এল।

কুমো বলেন, ওই দুই মাসে ইউরোপ থেকে নিউ ইয়র্ক ও নিউ জার্সির বিমানবন্দরগুলোতে উড়োজাহাজে চেপে ২২ লাখ লোক এসেছে এবং তাদের অনেকেই হয়তো উচ্চমাত্রার সংক্রামক রোগ কোভিড-১৯ এর ভাইরাস বহন করছিলেন।

নিউ ইয়র্ক অঙ্গরাজ্যে প্রথম রোগী শনাক্ত হয়েছে ১ মার্চ, কিন্তু গবেষণার হিসাব বলছে এই সময়ের মধ্যেই নিউ ইয়র্কের ১০ হাজারেরও বেশি বাসিন্দা সম্ভবত ভাইরাসটির সংস্পর্শে এসে গিয়েছিলেন, নর্থইস্টার্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষণার উদ্ধৃতি দিয়ে জানিয়েছেন তিনি।

নিউ ইয়র্কে শনাক্ত হওয়া প্রথম আক্রান্ত ও গভর্নরের লকডাউন নির্দেশের মধ্যে ১৯ দিনের ব্যবধান ছিল। এ বিষয়ে কুমো বলেছেন, তিনি যুক্তরাষ্ট্রের অন্য অঙ্গরাজ্যগুলো থেকে অনেক আগে পদক্ষেপ নিয়েছেন।

শনিবার (২৫ এপ্রিল) বিকাল পর্যন্ত জনস হপকিন্স বিশ্ববিদ্যালয়ের হালনাগাদ করা তথ্য অনুযায়ী, যুক্তরাষ্ট্রে নতুন করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ৯ লাখ ৫ হাজার ছাড়িয়ে গেছে এবং মৃতের সংখ্যা ৫২ হাজার ছুঁই ছুঁই করছে।সূত্র: সাউথ চায়না মর্নিং পোস্ট।

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

error: Content is protected !!