নারায়ণগঞ্জে মসজিদে বিস্ফোরণ: তিতাসের প্রকৌশলীসহ গ্রেপ্তার ৮

গত ৪ সেপ্টেম্বর রাতে নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লায় মসজিদে বিস্ফোরণের ঘটনায় তিতাসের আট কর্মকর্তা ও কর্মচারীকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি)। শনিবার (১৯ সেপ্টেম্বর) দুপুরে সিআইডির সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার জিসান আহমেদ এ তথ্য জানান। মসজিদে বিস্ফোরণের ঘটনায় হওয়া মামলায় তাদের গ্রেফতার করা হয়েছে।

তিনি বলেন, বিস্ফোরণের ঘটনায় তাদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে।
গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন—তিতাসের ফতুল্লা অঞ্চলের ব্যবস্থাপক প্রকৌশলী সিরাজুল ইসলাম, উপব্যবস্থাপক মাহমুদুর রহমান রাব্বি, সহকারী প্রকৌশলী এসএম হাসান শাহরিয়ার, সহকারী প্রকৌশলী মানিক মিয়া, সিনিয়র সুপারভাইজার মুনিবুর রহমান চৌধুরী, সিনিয়র উন্নয়নকারী আইউব আলী, হেলপার হানিফ মিয়া ও কর্মচারী ইসমাইল প্রধান।

প্রসঙ্গত, ৪ সেপ্টেম্বর রাতে এশার নামাজের সময় ফতুল্লার পশ্চিম তল্লা বায়তুস সালাত জামে মসজিদে এ বিস্ফোরণ ঘটে। ফরজ নামাজের মোনাজাত শেষে অনেকে সুন্নত ও অন্য নামাজ পড়ছিলেন। তখন ছয়টি এসি বিস্ফোরিত হয়। এতে ৩৭ জন দগ্ধ হন। তার মধ্যে ৩৩ জন মারা গেছেন।

বিস্ফোরণটি তিতাস গ্যাসের বিদ্যমান গ্যাস লাইনের লিকেজজনিত কারণে হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়ার পর বিষয়টি তদন্ত করতে তিতাস গ্যাস ট্রন্সমিশন কোম্পানি একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেছে। গ্যাসের লিকেজ অনুসন্ধানে খোঁড়াখুঁড়ি করেছে তিতাস গ্যাস কর্তৃপক্ষ। এসময় গ্যাসের পাইপলাইনে ৬টি লিকেজ পাওয়া যায়।

এ ঘটনায় ফায়ার সার্ভিস, তিতাস গ্যাস কর্তৃপক্ষ ও জেলা প্রশাসন পৃথকভাবে তিনটি তদন্ত কমিটি গঠন করেছিল। এর মধ্যে তিতাস ও জেলা প্রশাসন তাদের প্রতিবেদন দাখিল করেছে। এ ঘটনায় তিতাস গ্যাস ট্রান্সমিশন ও ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেডের ফতুল্লা অফিসের আট কর্মকর্তা-কর্মচারীকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। আজ গ্রেপ্তার করা হয়েছে তাদের ।

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

error: Content is protected !!