দ্বিতীয় মেয়াদে জয়ের জন্য শি জিনপিংয়ের সাহায্য চেয়েছিলেন ট্রাম্প

ডেস্ক রিপোর্ট:

যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা জন বোল্টনের লেখা বই ‘দ্য রুম হোয়্যার ইট হ্যাপেনড’ নিয়ে বিতর্ক শুরু হয়েছে। বইটিতে দ্বিতীয় দফায় দেশটির প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হবার জন্য ডোনাল্ড ট্রাম্প চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিংয়ের সাহায্য পেতে চেষ্টা করেছিলেন বলে দাবি করেছেন জন বোল্টন। নিজের লেখা নতুন বইতে তিনি এ দাবি করেছেন। 

‘দ্য রুম হোয়্যার ইট হ্যাপেনড’ বই  আগামী ২৩ শে জুন প্রকাশিত হওয়ার কথা রয়েছে। বইটিতে বোল্টন দাবি করেছেন, ট্রাম্প চেয়েছিলেন চীন মার্কিন কৃষকদের উৎপাদিত পণ্য কিনুক।

গত জানুয়ারিতে হোয়াইট হাউজ বলেছিল বইটিতে ‘টপ সিক্রেট’ তথ্য এবং বর্ণনা রয়েছে, যা অবশ্যই বাদ দিতে হবে।

তবে বোল্টন সেসময় তা নাকচ করে দিয়েছিলেন। ট্রাম্পের অভিশংসন বিচারের ক্ষেত্রে যেসব প্রশ্ন উঠেছিল, তা বোল্টনের বইটিতে স্থান পেয়েছে।

ট্রাম্পের বিরুদ্ধে এ অভিযোগটি উঠেছে মূলতঃ জাপানের ওসাকায় গত বছরের জুনে জি-২০ সম্মেলনের ফাঁকে ট্রাম্প এবং শি জিন পিংয়ের মধ্যে হওয়া এক বৈঠক নিয়ে।

নিইয়র্ক টাইমসে প্রকাশিত নতুন বইটির সারসংক্ষেপে বোল্টন দাবি করেছেন, চীনের প্রেসিডেন্ট অভিযোগ করেছিলেন, কিছু মার্কিন সমালোচক চান চীনের সঙ্গে যাতে নতুন করে স্নায়ুযুদ্ধ শুরু হয়।

বোল্টন বলেছেন, এরপর বিস্ময়করভাবেই ট্রাম্প আলোচনা ২০২০ সালে অনুষ্ঠিতব্য প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের দিকে ঘুরিয়ে দেন। চীনের অর্থনৈতিক সামর্থ্যের কথা উল্লেখ করে ট্রাম্প নির্বাচনে জেতার জন্য  বেইজিংয়ের সাহায্য চান।

বোল্টন বলেন বলেন, ট্রাম্প কৃষকদের গুরুত্বের ওপর এবং দেশটি থেকে চীনের সয়াবিন ও গম ক্রয়ের বর্ধিত হারের ওপর বারবার জোর দিচ্ছিলেন। এরপর শি জিন পিং যখন বাণিজ্য আলোচনায় কৃষি উৎপাদনের ওপর জোর দেয়া হবে বলে মন্তব্য করেন।  ট্রাম্প তখন তাকে ‘চীনের ইতিহাসে শ্রেষ্ঠ নেতা’ বলে মন্তব্য করেন।

বই বিতর্ক

সংবাদদাতারা বলছেন, নতুন বইয়ের তথ্য ট্রাম্পের ইমপিচমেন্টের ঘটনা মনে করিয়ে দেয়।ট্রাম্প প্রশাসন ইতিমধ্যেই বইটির প্রকাশনা আটকে দেবার চেষ্টা করছে। ডিপার্টমেন্ট অব জাস্টিসের অভিযোগ বইটিতে ‘ক্লাসিফায়েড’ অর্থাৎ ‘রাষ্ট্রীয়’ গোপনীয় তথ্য রয়েছে। এদিকে, বইটি নিয়ে ইতিমধ্যেই নানা ধরণের বিতর্ক তৈরি হয়েছে।

মার্কিন ট্রেড রিপ্রেজেন্টেটিভ রবার্ট লাইথিজার বোল্টনের বক্তব্যকে নাকচ করে দিয়েছেন, তিনি বলেছেন, ‘চীনের প্রেসিডেন্টের সঙ্গে ওই আলোচনায় দ্বিতীয় দফা নির্বাচনে জেতার ব্যাপারে কোন আলোচনা হয়নি। 

জানুয়ারিতে ডেমোক্রেটিক দলের সম্ভাব্য প্রেসিডেন্ট প্রার্থী জো বাইডেন ও তার ছেলে হান্টারের বিরুদ্ধে দুর্নীতির তদন্ত শুরু করার জন্য ইউক্রেনের প্রেসিডেন্টকে চাপে ফেলার জন্য সামরিক সহায়তা প্রত্যাহারের অভিযোগে ইমপিচমেন্টের মুখোমুখি হন ট্রাম্প।

তবে সব অভিযোগ অস্বীকার করেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট। রিপাবলিকান নিয়ন্ত্রিত সেনেটে কোন সাক্ষীর বক্তব্য ছাড়াই দুই সপ্তাহব্যাপী ট্রায়ালের পর নিষ্কৃতি পান ট্রাম্প।

২০১৮ সালের এপ্রিলে হোয়াইট হাউজে যোগ দেন  বোল্টন, একই বছরের সেপ্টেম্বরে তিনি জানান যে তিনি জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টার পদ ছেড়ে দেবার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। কিন্তু ট্রাম্প বলেছিলেন, প্রেসিডেন্টের সাথে মতানৈক্য হবার কারণে তাকে চাকরিচ্যুত করা হয়েছে। বিবিসি বাংলা

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

error: Content is protected !!