দুই পাশে দুই শক্তি কার সঙ্গে আগে যুদ্ধে জড়াবে মোদী?

একদিকে চীন, অন্যদিকে পাকিস্তান- কার সঙ্গে আগে যুদ্ধে জড়াবে ভারত? বিষয়টি এখনও স্পষ্ট নয়। তবে, কাশ্মীরে যেন ইতোমধ্যে শুরু হয়ে গিয়েছে যুদ্ধ-প্রস্তুতি। শেষমেশ কি যুদ্ধই শুরু হচ্ছে কাশ্মীরকে কেন্দ্র করে? 

বিশেষ সূত্রের খবর, জম্মু-কাশ্মীর প্রশাসনের পক্ষ থেকে রাজ্যের এলপিজি গ্যাসের ডিস্ট্রিবিউটারদের নির্দে’শ দেওয়া হয়েছে, আগামী দুমাসের জন্যে রান্নার গ্যাসের সিলিন্ডার মজুত রাখতে। যদিও প্রশাসনের তরফ থেকে জানানো হয়েছে, ভূমিধ্বসের কারণে জাতীয় সড়কে পণ্য পরিবহণ ব্যাহত হতে পারে। সেই কারণেই কাশ্মীরে আগামী দুমাসের জন্য এলপিজি গ্যাস পর্যাপ্ত মজুত রাখতে।

শুধু তাই নয়, গান্ডারওয়াল এলাকার পুলিশ সুপারের দফতর থেকেও একটি নির্দেশিকা জারি হয়েছে । এতে বলা হয়েছে এলাকার ১৬টি স্কুল নিরাপত্তা কর্মীদের জন্যে ব্যবহার করা হবে। তাই যেন খালি করে দেওয়া হয় স্কুলগুলি। উল্লেখ্য, গান্ডারওয়াল হল কাশ্মীরের কার্গিল সংলগ্ন এলাকা।

কিন্তু এই যুক্তিতে ভুলছেন না কাশ্মীরিরা। তাঁদের মনে পড়ে যাচ্ছে, গত বছর বালাকোট এয়ারস্ট্রাইকের আগে এবম রাজ্য থেকে ৩৭০ আর্টিকেল বাতিল করার আগেও এই ধরনেরই কিছু পদক্ষেপ করেছিল সরকার। ফলে সঙ্গত কারণেই সিঁদুরে মেঘ দেখছেন তাঁরা।

স্থানীয় মানুষজনের মতে, সরকারের পক্ষ থেকে যে কারণই দেখানো হোক না কেন, আগের অভিজ্ঞতা তাদের রয়েছে। তাই বেশ বড় ধরনের কিছুই ঘটতে চলেছে, বলে তারা নিশ্চিত। উল্লেখ্য, লকডাউন হোক বা ৩৭০ ধারা রদের পর থেকে কেন্দ্র যতই শান্তি-শৃঙ্খলা বজায় থাকার কথা বলুক, কাশ্মীরে সন্ত্রাসবাদী কার্যকলাপে রেশ যায়নি এখনো। 

একদিকে যখন এমন আশঙ্কার চিত্র দেখা যাচ্ছে, তাতে সরকার মুখে বন্ধ রাখলেও উপগ্রহ চিত্র ও সেনাসূত্র বলছে, গলওয়ান উপত্যকা ছাড়িয়ে চীনা সক্রিয়তা লাদাখের অন্যত্র অনেকটাই ছড়িয়েছে। লাল ফৌজের জমায়েতের খবর আসতে শুরু করেছে । গলওয়ান উপত্যকায় চীনের নতুন পোস্ট ও নির্মাণও ধরা পড়েছে উপগ্রহ চিত্রে। এদিকে ভারতও সীমান্তে সেনা ও অস্ত্রসস্ত্র বাড়াচ্ছে। ফলে যুদ্ধ কি তবে আসন্ন? এই প্রশ্নের  উত্তরের অপেক্ষায় কাঁপছে ভূগর্ভ।

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

error: Content is protected !!