দফায় দফায় বৈঠক শেষে পিছু হটল ভারত-চীন উভয়ই

ডেস্ক রিপোর্ট:

গালওয়ানে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের পর দফায় দফায় বৈঠক শেষে পিছু হঠতে রাজি হল চীন ভারত দুই দেশই।

মঙ্গলবার লাদাখে ১১ ঘণ্টার কোর কম্যান্ডার লেভেল ম্যারাথন বৈঠকে শেষপর্যন্ত প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখায় সেনা পেছানোর ব্যাপারে দুই দেশের বাহিনী পারস্পরিক ঐকমত্যে এসেছে বলে জানা গেছে।

ভারতীয় সেনা সূত্রে জানা যায়, পূর্ব লাদাখের মলডো অঞ্চলে ইতিবাচক ও গঠনমূলক আলোচনা হয়েছে দুই সেনার মধ্যে। ভারতীয় সেনার দাবি, পূর্ব লাদাখের গালওয়ান-সহ প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখা বরাবর জায়গা গুলি থেকে সরে আসার কথায় রাজি হয়েছে চীনা সেনা।

সেনা সূত্রকে উদ্ধৃত করে ভারতের সংবাদ সংস্থাগুলো জানিয়েছে, প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখা থেকে দুই দেশই সেনা সরাতে একমত হয়েছে। লাদাখের চুসুলের মলডো এলাকায় চীনা শিবিরে কোর কম্যান্ডার পর্যায়ের ওই বৈঠকে ‘খোলা মনে ইতিবাচক ও গঠনমূলক’ আলোচনা হয়েছে বলে ভারতীয় সেনাবাহিনীর দাবি। সূত্রের কথায়, সংঘর্ষ ও বিবাদপূর্ণ এলাকা থেকে সেনা সরাতে চীন সম্মত হয়েছে।

সোমবারের বৈঠকে ভারতের নেতৃত্ব দেন ১৪ কোরের লেফটেন্যান্ট জেনারেল হরিন্দর সিং। চীনের নেতৃত্বে ছিলেন মেজর জেনারেল লিন লিউ। বৈঠকের পর সেনা সূত্র জানান, প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখা বরাবর বাঙ্কার সহ স্থায়ী কাঠামো তৈরির কাজ বন্ধ রাখতে চীন নীতিগতভাবে রাজি হয়েছে। প্যাংগং লেকের ধার ঘেঁষে ফিঙ্গার ৪ থেকে ৮ পর্যন্ত বেশ কিছু স্থায়ী ও অস্থায়ী কাঠামো চীন তৈরি করেছে। এ নিয়ে ভারতের আপত্তি থেকে বিবাদ ও সংঘর্ষ।

ফ্রান্সের সংবাদ সংস্থা এএফপি চীনা পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র ঝাও লিজিয়ানের বরাত দিয়ে জানিয়েছে, দুই দেশই পরিস্থিতি শান্ত করতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবে ঠিক করেছে।

চলতি জুন মাসের ৬ তারিখেও দুই দেশ এই ধরনের সিদ্ধান্ত নিয়েছিল। কিন্তু তারপরও ১৫ জুন দিবাগত রাতে দুই দেশের মধ্যে হাতাহাতি লড়াইয়ে ২০ জন ভারতীয় সেনার মৃত্যু হয়। আহত হন অন্তত ৭৬ জন। ১০ জন চীনাদের হাতে আটক হন। তিন দিন পর তাদের মুক্তি দেয় চীন।

ভারত-চীন সীমান্তে দু’দেশের সেনাদের মধ্যে সংঘর্ষে চীনের ৪০ জন সেনা নিহত হয়েছে বলে নয়া দিল্লি যে দাবি করছে তা অস্বীকার করেছে চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

মঙ্গলবার (২৩জুন) এক বিবৃতিতে চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বলেছে, লাদাখের গালওয়ান উপত্যকায় সংঘর্ষের ঘটনায় চীনের কমপক্ষে ৪০ সেনা নিহত হয়েছেন বলে ভারতের কেন্দ্রীয় সড়ক এবং পরিবহন বিষয়ক মন্ত্রী ভিকে সিং যে দাবি করেছেন তার কোনো ভিত্তি নেই।

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

error: Content is protected !!