ঝুঁকি আছে হ্যান্ড স্যানিটাইজার ব্যবহারেও

মহামারি করোনায় সময় যত গড়াচ্ছে লাশের সংখ্যা ততোই বাড়ছে। এরই মধ্যে ঘাতক ভাইরাসের ছোবলে বিশ্বজুড়ে প্রাণ হারিয়েছেন ১ লাখ ৩০ হাজারেরও বেশি মানুষ। আক্রান্ত হয়েছেন ২০ লক্ষাধিক। করোনা থেকে বাঁচতে আমরা অনেকেই হ্যান্ড স্যানিটাজার ব্যবহার করে নিশ্চিন্ত থাকি। বেশিরভাগ হ্যান্ড স্যানিটাইজারে থাকে উচ্চ মাত্রার এথানল ও ইথাইল অ্যালকোহল। যা বিভিন্ন ধরনের মাইক্রোবস থেকে হাতকে রক্ষা করে। ইথাইল অ্যালকোহল এক ধরনের বর্ণহীন দাহ্য তরল, যা এক ধরনের হালকা কটু গন্ধ ছড়ায়। মূলত হ্যান্ড স্যানিটাইজার ব্যবহারের সময় ঘরোয়া সাধারণ তাপমাত্রায় বাতাসে মিলিয়ে যায়। কিন্তু আগুনের আশেপাশে গেলেই আগুন ধরে যাওয়ার সম্ভাবনা ও ঝুঁকি থাকে।

১. হ্যান্ড স্যানিটাইজারের কঠোর কেমিক্যাল উপাদা ত্বকে জ্বালাপোড়াভাব ও চুলকানির উপদ্রব ঘটাতে পারে।

২. অতিরিক্ত ব্যবহারে ত্বকের উপরের অংশের চামড়া উঠে আসার সমস্যা দেখা দিতে পারে।

৩. ইউভি রশ্মিতে (সূর্যের আলো) ত্বকে সমস্যা ও জ্বালাপোড়া তৈরি করতে পারে।

৪. ট্রাইক্লোসান ত্বকের গভীরে গিয়ে রক্তে মিশে অ্যালার্জিরা প্রাদুর্ভাব তৈরি করতে পারে।

৫. হ্যান্ড স্যানটাইজারের কেমিক্যাল উপাদান সাধারণ রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতায় ব্যাঘাত ঘটাতে পারে।

যে কোনো সময়ই আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকিতে রয়েছে প্রত্যেকে। যেহেতু প্রাণঘাতী এই করোনার ভয়ে সকলেই ভীতস্থ কেননা এটি প্রতিরোধের কোনো ওষুধ আবিষ্কার হয়নি এখন পর্যন্ত। তাই সচেতনাতায় এখন এটি থেকে বাঁচার একমাত্র পথ।

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.