জো বাইডেন জয়ী হলে যুক্তরাষ্ট্র ধ্বংসের মুখে পড়বে: ট্রাম্প

আগামী নির্বাচনে জো বাইডেন প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হলে যুক্তরাষ্ট্রে চীন ছুরি ঘোরাবে বলে মন্তব্য করেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। ওয়াশিংটনে বাইডেন সরকার চায় বেইজিং, এমন গোয়েন্দা প্রতিবেদন তার কাছে রয়েছে বলেও অভিযোগ করেন তিনি।
এদিকে এক সাক্ষাৎকারে জো বাইডেন পাল্টা অভিযোগ করেন, ট্রাম্প যেভাবে কথা বলেন, তা একজন প্রেসিডেন্টের ভাষা হতে পারে না। রানিংমেট কমলা হ্যারিসও, এক হাত নেন ট্রাম্পকে।

হোয়াইট হাউজ প্রাঙ্গণে শুক্রবার ছোট ভাইয়ের প্রতি শ্রদ্ধা জানান মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। সঙ্গে ছিলেন স্ত্রী মেলানিয়া ট্রাম্পসহ কাছের স্বজনরা। কোভিড-নাইনটিনের কারণে সংক্ষিপ্ত করে আনা হয় পুরো আয়োজন। গেলো শনিবার নিউ ইয়র্কের হাসপাতালে মারা যান ৭১ বছর বয়সী রবার্ট ট্রাম্প।

এরপরই ট্রাম্প ভার্জিনিয়ায় এক নির্বাচনী সভায় অংশ নেন। ডেমোক্র্যাট দলীয় প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী জো বাইডেন জয়লাভ করলে যুক্তরাষ্ট্রের সভ্যতা ধ্বংসের মুখে পড়বে বলে অভিযোগ করেন তিনি।

ট্রাম্প গোয়েন্দা প্রতিবেদন নিয়ে কথা বললেও, বার্তা সংস্থা রয়টার্সের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, নিরাপত্তা কর্মকর্তাদের বেশ কয়েকজনের সমর্থন হারিয়েছেন প্রেসিডেন্ট। সিআইএ ও তদন্ত সংস্থা এফবিআই-এর প্রাক্তন প্রধানসহ ৭০ জনের বেশি নিরাপত্তা কর্মকর্তা ডেমোক্র্যাট প্রার্থী জো বাইডেনকে সমর্থন দিতে তৈরি। কারা আছেন এই তালিকায়, প্রতিবেদনে উঠে এসেছে তাদের নাম। এতে দেখা গেছে, প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট রোনাল্ড রেগন, জর্জ এইচ ডব্লিউউ বুশ, জর্জ ডব্লিউ বুশের আমলের গোয়েন্দা কর্মকর্তারা সবাই অখুশি ট্রাম্পের নীতিতে। আবার খোদ প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের অধীনে কাজ করা কয়েকজন নিরাপত্তা কর্মকর্তারাও রয়েছেন এ তালিকায়। প্রতিবেদনে বলা হয়, ওই প্রাক্তন গোয়েন্দা ও নিরাপত্তা কর্মকর্তারা মনে করেন, ট্রাম্প ‘দুর্নীতিবাজ’ নেতা ও প্রেসিডেন্ট হওয়ার ‘অযোগ্য’ প্রার্থী।

এদিকে নর্থ ক্যারোলাইনার উইলমিংটনে এক টেলিভিশন সাক্ষাৎকারে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ট্রাম্পের প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী জো বাইডেন বলেন, ট্রাম্প যে ভাষায় কথা বলেন তা একজন প্রেসিডেন্টের বক্তব্য হতে পারে না।ডেমোক্র্যাট দলীয় ভাইস প্রেসিডেন্ট কমলা হ্যারিসকে কুৎসিত বলার সমালোচনাও করেন তিনি।

এ নিয়ে কমলা হ্যারিস বলেন, নিজ দেশের জনগণকেই যিনি সম্মান দিতে জানেন না তিনি প্রতিদ্বন্দ্বীকে কী করে সম্মান দেবেন?

যুক্তরাষ্ট্র ডেমোক্র্যাট দলীয় ভাইস প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী কমলা হ্যারিস বলেন, প্রতিদিনই ট্রাম্প যা করছেন, এবং বলছেন, এতে করে তিনি যুক্তরাষ্ট্রের জনগণকে বিভ্রান্ত করছেন। তিনি তুচ্ছতাচ্ছিল্য করছেন মার্কিন নাগরিকদের। তাদের সম্মান দিতে জানেন না ট্রাম্প।

যুক্তরাষ্ট্র ডেমোক্র্যাট দলীয় প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী জো বাইডেন বলেন, যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে ট্রাম্পের মতো করে কোনো প্রসিডেন্ট বিদ্বেষ ছড়াননি। তার মতো ভাষা কোনো প্রেসিডেন্টের ছিল না।

আগামী ৩ নভেম্বর যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। এর আগে দুই প্রার্থী বেশ কয়েকটি সরাসরি বিতর্কে অংশ নেবেন ।

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

error: Content is protected !!