চীনে নতুন ভাইরাস শনাক্ত, বিশ্বজুড়ে ‘মহামারির শঙ্কা’

বিজ্ঞানীরা চীনে নতুন এক ফ্লু ভাইরাস চিহ্ণিত করেছেন যেটির মহামারিতে রূপ নেবার সম্ভাবনা রয়েছে। তারা বলছেন সম্প্রতি এটি পাওয়া গেছে শূকরের দেহে। তবে এই ভাইরাস মানুষের শরীরে সংক্রমিত হতে পারে।

গবেষকরা উদ্বিগ্ন এই কারণে যে, এই ভাইরাসটি বিশ্ব ব্যাপী মহামারি আকারে ছড়িয়ে পড়তে পারে। তারা বলছেন, যদিও এই ভাইরাসটি অবিলম্বে ছড়িয়ে পড়ার আশংকা করছেন না, কিন্তু মানুষকে আক্রমণ করার উপযোগী হয়ে ওঠার “সব রকম লক্ষণ” এই ভাইরাসের রয়েছে, যে কারণে এই ভাইরাসকে গভীর পর্যবেক্ষণের মধ্যে রাখা জরুরি বলে তারা মনে করছেন। এই ভাইরাসটিও যেহেতু নতুন, তাই মানুষের এই জীবাণুর বিরুদ্ধে কোন ইমিউনিটিই থাকবে না, থাকলেও তা খুবই অল্পমাত্রায় থাকবে।

বিশ্ব যখন এই মুহূর্তে করোনাভাইরাসকে বাগে আনতে হিমশিম খাচ্ছে, তখন বিজ্ঞানীরা খারাপ প্রকৃতির ইনফ্লুয়েঞ্জা ভাইরাস, যা রোগ সংক্রমণের ক্ষেত্রে বড় ধরনের হুমকি হয়ে উঠতে পারে, তার সন্ধানে কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন। বিজ্ঞানীরা বলছেন এখন চীনে নতুন যে ফ্লু ভাইরাস পাওয়া গেছে তার সাথে ২০০৯-এর সোয়াইন ফ্লু-র মিল থাকলেও নতুন ভাইরাসটি কিছুটা আলাদা।এই গবেষণার কাজে যুক্ত অধ্যাপক কিন-চোও চ্যাং এবং তার সহকর্মীরা বলছেন, এই ভাইরাস এখনও গুরুতর কোন হুমকি হয়ে ওঠেনি, তবে অবশ্যই এই ভাইরাসকে নজরদারিতে রাখতে হবে।

নতুন ভাইরাসটির নাম গবেষকরা দিয়েছেন G4 EA H1N1। এটি মানুষের শ্বাসনালীতে যে কোষ থাকে সেখানে এই ভাইরাসের বংশবৃদ্ধি করে বেড়ে ওঠার ক্ষমতা রাখে। বর্তমানে যে ফ্লু ভ্যাকসিন আছে, তা এই ভাইরাসের বিরুদ্ধে সুরক্ষা দেয় না বলে দেখা যাচ্ছে। অধ্যাপক কিন-চোও চ্যাং বিবিসিকে বলেছেন: “এই মুহূর্তে আমাদের সবার দৃষ্টি করোনাভাইরাসের দিকে। কিন্তু নতুন এই ভাইরাসও একটা সম্ভাব্য বিপদজনক ভাইরাস। এটার দিক থেকে দৃষ্টি সরানো আমাদের উচিত হবে না।”

কেম্ব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়ের পশু চিকিৎসা বিভাগের বলছেন, এই গবেষণার কাজ এটাই আমাদের মনে করিয়ে দিচ্ছে যে আমরা সবসময়ই নতুন জীবাণুর জন্ম নেয়ার ঝুঁকির মধ্যে বাস করছি। খামারের পশুর শরীরেই বেশিরভাগ ক্ষেত্রে এধরনের মহামারি তৈরির সম্ভাবনাময় ভাইরাস জন্ম নিচ্ছে। আর যেসব মানুষকে পশু খামারে কাজ করতে হয়, সেসব মানুষকে পশুর খুব কাছাকাছি সংস্পর্শের মধ্যে এসে কাজ করতে হয়, তাই এই ভাইরাসগুলো পশুর শরীর থেকে মানুষের শরীরে ঢোকার আশংকা থেকেই সবসময়ে এধরনের মহামারির একটা বড় ঝুঁকি তৈরি হয়।

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

error: Content is protected !!