November 25, 2020

মাই পেটারসন. লাইফ

ভয়েস অফ দ্যা কমিউনিটি

চিরনিদ্রায় শায়িত কুয়েতের আমির শেখ সাবাহ

উপসাগরীয় দেশ কুয়েতের প্রধান কবরস্থান সুলাইবিখাত কবরস্থানে চিরনিদ্রায় শায়িত হয়েছেন কুয়েতের আমির শেখ সাবাহ আল-আহমেদ আল-সাবাহ।

মঙ্গলবার ৯১ বছর বয়সে মারা যান তিনি। এরপরই দেশটির মন্ত্রিসভা তার সৎভাই ৮৩ বছর বয়স্ক শেখ নওয়াফ আল আহমেদকে নতুন আমির বলে ঘোষণা করা হয়েছে।

বুধবার কুয়েতের বৃহত্তম ও প্রধান কবরস্থান সুলাইবিখাত কবরস্থানে দাফন করা হয়।

কুয়েতের আমির শেখ সাবাহ আহমদ আল-সাবাহের নিকটস্থ পরিবারের সদস্যরা দাফনের জন্য লাশ নিয়ে যাওয়ার আগে বিলাল বিন রাবাহ মসজিদে জানাজা করা হয়।

এর আগে শেখ সাবাহের মরদেহ আমেরিকা থেকে কুয়েত এয়ারওয়েজের বিমানে পৌঁছাইলে সেখানে তার ভাই, কুয়েতের নতুন নেতা শেখ নওয়াফ আল-আহমদ আল-জাবের আল-সাবেহ এবং বেশ কয়েকজন কর্মকর্তা ও সুরক্ষা বাহিনী কুয়েত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে তার মরদেহ গ্রহণ করে।

রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থা কুনা জানিয়েছে, মরহুমের আমিরের মরদেহ মসজিদে জানাজার জন্য নিয়ে যাওয়ার জন্য দুপুর ২টা থেকে বেশ কয়েকটি রাস্তা বন্ধ রাখা ছিল।

আমিরের মরদেহ কেবল আত্মীয়দের উপস্থিতিতে কবরস্থানে দাফন করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার আমিরের কবরটি জনসাধারণের জন্য দেখার জন্য উন্মুক্ত থাকবে।

সারাদেশের মসজিদগুলিতে আমিরের জন্য প্রার্থনা করা হবে।

শেখ সাবাহ আল-আহমেদ আল-সাবাহ জুলাই মাসে অসুস্থ হয়ে পড়ার পর তাকে চিকিৎসার জন্য যুক্তরাষ্ট্রে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল। তার অসুস্থতা কী ছিল – তা প্রকাশ করা হয়নি।

মঙ্গলবার যুক্তরাষ্ট্রে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শেখ সাবাহ মারা যান।

তার মৃত্যুতে জাতিসংঘের মহাসচিব অ্যান্তোনিও গুতেরেস, জর্ডানের বাদশা আবদুল্লাহ, ও আবুধাবির যুবরাজ শেখ মোহাম্মদ বিন জায়েদ আল নাহিয়ানের মতো নেতারা শোক প্রকাশ করেছেন।

শেখ সাবাহ আল-আহমেদ আল-সাবাহ ২০০৬ সাল থেকে কুয়েতের আমির ছিলেন, এবং তার আগে ৫০ বছর ধরে দেশটির পররাষ্ট্রনীতির তত্বাবধান করেছেন। মধ্যপ্রাচ্যের কূটনীতির ক্ষেত্রে তার সক্রিয় ভূমিকার কারণে ‘ডীন অব আরব ডিপ্লোম্যাসি’ বলা হতো তাকে।

error: Content is protected !!