ঘরোয়া উপায়ে খু্ব সহজে তাড়ান ত্বকের বয়সের ছাপ

প্রথমেই বার্ধক্যের ছাপ পড়ে মুখে। দেখা দেয় বলিরেখা। বয়স জানান দিচ্ছে ত্বকে। একটু একটু যেন গভীর হচ্ছে চোখের চার পাশের ত্বকের বলিরেখা। ত্বকের নানা জায়গায় হালকা বাদামি দাগ যেন বসে যাচ্ছে দিন দিন। কোনো ক্রিমেই কাজ হচ্ছে না।

প্রায় সব চেষ্টাই যখন ব্যর্থ, তখনও চিন্তার কিছু নেই। সেই কবিতার কথা মনে হবে সমাধান জানার পর। দেখা হয় নাই চক্ষু মেলিয়া, ঘর হতে শুধু দুই পা ফেলিয়া… কারণ হাতের কাছেই আছে সহজ উপায়। প্রাকৃতিক উপাদানের সাহায্যে বয়সের এই ধরণের ছাপ ধীর করা যায়।

ত্বক-বিষয়ক একটি ওয়েবসাইটে প্রকাশিত প্রতিবেদন থেকে বয়সের ছাপ ধীর করার কয়েকটি পন্থা এখানে দেওয়া হল।

ঘরে থাকা চাল দিয়েই ত্বককে পরিষ্কার ও দাগমুক্ত করার টোনার বানিয়ে নিন। মাত্র সাত দিন ব্যবহারেই ত্বকের বয়সের ছাপ দূর হবে।

জেনে নিন কীভাবে বানাবেন এই টোনার? এক গ্লাস পানিতে দু’ চা চামচ ভাতের চাল সারা রাত ভিজিয়ে রাখুন। সকালে চালের পানি ছেকে একটি স্প্রে বোতলে ভরে নিন। দিনে দু’তিনবার মুখ পরিষ্কার করে মুখে এই টোনার স্প্রে করে নিন। ফ্রিজে রেখে এটি সাত দিন পর্যন্ত ব্যবহার করতে পারবেন।

প্রতি সপ্তাহে নতুন করে তৈরি করে নিন ম্যাজিক টোনার। নিয়মিত ব্যবহারে পান তারুণ্যদীপ্ত উজ্জ্বল ত্বক।

এছাড়া বয়সের ছাপ দূর করার আরও কয়েকটি উপাদান:

ডিম ও লেবুর রস: বয়সের সঙ্গে সঙ্গে ত্বক ঝুলে যাওয়া ও দাগ পড়ার সমস্যা দেখা দেয়। এক্ষেত্রে ডিম ও লেবুর প্যাক খুব ভালো কাজ করে।

একটা ডিম ভেঙে তার সাদা অংশ ও লেবুর রস মিশিয়ে প্যাক তৈরি করুন। তুলার বলের সাহায্যে প্যাকটা ত্বকে মেখে ২০ মিনিট অপেক্ষা করুন। শুকিয়ে এলে পরিষ্কার পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে নিন।

ডিমে থাকা প্রোটিন ত্বকে টানটান ভাব আনে এবং লেবুর রস ত্বকের দাগ, ছোপ কমাতে সহায়তা করে।

চিনি ও মধু: চিনি প্রাকৃতিক এক্সফলিয়েটর হিসেবে কাজ করে। মৃত ও শুষ্ক কোষ দূর করে।

এক টেবিল-চামচ চিনির সঙ্গে এক টেবিল-চামচ মধু মিশিয়ে মিশ্রণ তৈরি করে আলতোভাবে মুখে ব্যবহার করুন। ১০ মিনিট অপেক্ষা করে পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। চিনি মৃত কোষ দূর করে এবং মধু লোমকূপের ময়লা দূর করতে সাহায্য করে।

চা ও আদা: চা বয়সের ছাপ ধীর করে। চা পানিতে ফুটিয়ে নিন। এতে কোনো রকম দুধ বা চিনি যোগ করবেন না। তারপর আদার রস বা নির্যাস যোগ করুন। চা ঠাণ্ডা হয়ে এলে তুলার বলের সাহায্যে তা মুখে ব্যবহার করুন। ১৫-২০ সেকেন্ড অপেক্ষা করে মুখ ধুয়ে নিন। এই প্যাক ত্বক উজ্জ্বল করে এবং বয়সের ছাপ দূর করে।

কলা ও জলপাইয়ের তেল: যারা বলিরেখা থেকে বাঁচতে চান তাদের জন্য এই প্যাক ভালো।

একটা কলা চটকে এতে এক চা-চামচ জলপাইয়ের তেল মেশান। প্যাকটটি মুখে মেখে ১৫ মিনিট অপেক্ষা করে ধুয়ে ফেলুন।

কলা পটাশিয়াম, জিঙ্ক, ভিটামিন এ, বি, সি এবং ই সমৃদ্ধ যা ত্বকের বলিরেখা দূর করতে সাহায্য করে। অন্যদিকে, জলপাইয়ের তেল প্রাকৃতিকভাবে আর্দ্র রাখে ত্বক।

আঙ্গুর ও গোলাপজল: এই প্যাক তৈরি করতে কয়েকটি আঙ্গুর রস করে নিন এবং এতে কয়েক ফোঁটা গোলাপ জল মিশিয়ে প্যাক তৈরি করুন।

আঙ্গুর অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট সমৃদ্ধ এবং ত্বকের স্থিতিস্থাপকতা ফেরাতে সাহায্য করে। গোলাপ জল ত্বক ঠাণ্ডা রাখে এবং মুখের বাড়তি তেল দূর করতে সহায়তা করে।

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.