কিম উন মারা গেলে উত্তর কোরিয়ার দায়িত্ব নেবে কে?

পারমাণবিক শক্তিধর উত্তর কোরিয়ার শাসক কিম জং-উনের স্বাস্থ্যের অবনতির খবর এখন সারা বিশ্বেই চাউর। সম্প্রতি তিনি মারা গেছেন বলে দাবি করেছে হংকংয়ের রাষ্ট্র সমর্থিত টিভি চ্যানেল ‘এইচকেএসটিভি হংকং’।

এ খবর প্রকাশ হওয়ার পর থেকেই নতুন জল্পনা শুরু হয়েছে চলমান করোনারভাইরাস পরিস্থিতি এবং যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে পারমাণবিক অস্ত্র কেন্দ্রিক উত্তেজনার মধ্যে কারা ধরবে উত্তর কোরিয়ার হাল। এ নিয়ে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে যুক্তরাজ্যভিত্তিক সংবাদমাধ্যম দ্য টেলিগ্রাফ।

কিম ইয়ো জং

কিম জং-উনের নিজের সন্তানরা ছোট হওয়ায় পরিবারতন্ত্রের নিয়ন্ত্রণ যেতে পারে তার ছোট বোন কিম ইয়ো জং-এর কাছে। উত্তর কোরিয়ার রাজনীতিতে এক সক্রিয় ভূমিকা পালন করে আসছেন ৩১ বছর বয়সী কিম ইও জং। কোরিয়ার রুলিং ওয়ার্কার পার্টির একজন সিনিয়র সদস্য তিনি এবং কিম জং উনের অত্যন্ত বিশ্বস্ত। তার ভাইকে বিশ্ব দরবারে একটি গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিত্ব হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করার জন্য তাকেই কৃতিত্ব দেওয়া হয়ে থাকে। তাই উত্তর কোরিয়ার সবচেয়ে ক্ষমতাশীল নারী হিসেবে পরিচিত তিনি।

চো রিওং হে

৩১ বছর বয়সী কিম ইয়ো জং প্রধান শাসকের আসনে থাকলেও তাকে ঘীরে থাকবে একদল জ্যেষ্ঠ নেতৃবৃন্দ। যাদের মধ্যে অন্যতম চো রিওং হে। চলমান করোনারভাইরাস পরিস্থিতি এবং যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে পারমাণবিক অস্ত্র কেন্দ্রিক উত্তেজনার মধ্যে সর্বাগ্রে ভাইস মার্শাল চো রিওং হেকে অগ্রণী ভূমিকা পালন করতে হবে।

এর আগে, গত বছর সুপ্রিম পিপলস-এর প্রেসিডিয়াম সভাপতি পদে পদোন্নতি পাওয়ার পর একজন সম্ভাব্য উত্তরসূরি হিসেবে ৭০ বছর বয়সী চো রিওং হের নাম উঠে এসেছিল।

পাক পং জু

পাক পং জু উত্তর কোরিয়ার শীর্ষস্থানীয় একজন নেতা এবং দেশটির সাবেক রাষ্ট্রপ্রধান। তিনি উত্তর কোরিয়ার অর্থনীতি পুনরুদ্ধারে বিরাট ভূমিকা রেখেছিলেন। কিম জং উনের অনুপস্থিতিতে উত্তর কোরিয়াকে পরিচালনা করতে তিনি প্রভাবশালী ভূমিকা রাখবেন বলে বিশেষজ্ঞরা বলেছেন।

কিম ইয়ং চোল

কিম ইয়ং চোল উত্তর কোরিয়ার ক্ষমতাসীন দলের ভাইস চেয়ারম্যান। তিনি দেশটির সাবেক শীর্ষ পারমাণবিক দূত ও গোয়েন্দা প্রধানের দায়িত্ব পালন করেছেন। দেশের আন্তর্জাতিক কূটনৈতিক শক্তি বৃদ্ধিতে তার কোনো বিকল্প নেই।

রি সন গুয়োন কিম জং উনের প্রাক্তন ডান হাত ছিলেন রি সন গুয়োন। তাকে সম্প্রতি দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী নিযুক্ত করা হয়েছে। এর আগে তিনি দক্ষিণ কোরিয়ার সঙ্গে উচ্চ পর্যায়ের আলোচনার নেতৃত্ব দিয়েছিলেন এবং সামরিক ক্ষেত্রে একজন অভিজ্ঞ ব্যক্তি হিসেবে পরিচিতি রয়েছে তার।

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.