কালোজিরা কালের সেরা মহৌষধ

করোনাভাইরাস মোকাবিলায় অনেকেই কালোজিরা সেবন করছেন।

প্রাচীন কাল থেকে মানুষ ঔষধ হিসেবে কালোজিরা ব্যবহার করে আসছে। জানা যায় মিশরের ফেরাউন রাজা টুটের সমাধিতে কালোজিরার সন্ধান পাওয়া গিয়েছিল।

মাথাব্যথা, দাঁতের ব্যথা, সর্দি-জ্বর জনিত নাক বন্ধ হওয়া, শ্বাসকষ্ট, বাতের ব্যথা, অন্ত্রের কৃমি, চোখ ওঠাসহ অসংখ্য রোগের প্রমাণিত ঔষধ হলো কালোজিরা। অনেকেই শুধু পুরুষের যৌন শক্তি বৃদ্ধিকারক কিংবা খাবারের স্বাদ বৃদ্ধিকারক হিসেবে জেনে থাকলেও কালোজিরার রয়েছে আরো অনেক উপকারী গুণ।

প্রিয়নবী হযরত মুহাম্মদ (সঃ) বলেছেন, “তোমরা কালোজিরা ব্যবহার করবে, কেননা এতে মৃত্যু ব্যতীত সর্ব রোগের ঔষধ রয়েছে”৷ কালোজিরার মধ্যে আল্লাহ সত্যিই বিস্ময়কর গুণাগুণ নিহিত রেখেছেন। মানব দেহে বিভিন্ন রোগের এটি যেমন প্রতিষেধক তেমনই প্রতিরোধকও৷ বিশ্বব্যাপী জনপ্রিয় মেডিক্যাল ওয়েবসাইট ওয়েবএমডি কালোজিরা প্রসঙ্গে লেখে-এটা বৈজ্ঞানিকভাবে প্রমাণিত যে কালোজিরা মানুষের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়।

করোনাভাইরাসে বিদ্ধস্ত মানবজাতি যখন রোগ প্রতিরোধে অক্ষমতার কারনে কাবু হয়ে যাচ্ছে তখন অনেকেই কোয়ারেন্টিনে থেকে নেট ঘেটে দেখছেন কি খেলে সুস্থ থাকা যায়। আর সেই কথা ভেবেই কালোজিরার সব গুণাগুণ নিয়ে হাজির হলাম।

কালোজিরা এর ইংরেজি নাম Black Seed, Ajenuz, Aranuel, Baraka, Black Cumin, Cheveux de Venus, Cominho Negro ইত্যাদি।

বিভিন্ন গবেষণার ভিত্তিতে কালোজিরার কার্যকারিতা সম্পর্কে বিস্তারিত তুলে ধরা হল।

  • শ্বাসকষ্ট। কালোজিরার দানা হাঁপানি, শ্বাসকষ্ট এবং কফের জন্য উপকারী। এছাড়াও ফুসফুসের ক্রিয়া সঞ্চালনেও কালোজিরা বেশ সাহায্য করে। গবেষণায় প্রমাণিত।
  • ডায়বেটিস। কালোজিরার গুড়ো ডায়াবেটিস রোগিদের রক্তের সুগার লেভেলে উপকারী। দৈনিক ২গ্রাম পরিমাণে খেতে হবে।
  • হাই ব্লাড প্রেসার বা উচ্চ রক্ত চাপ। গবেষণায় প্রমাণিত যে কালোজিরা উচ্চ রক্ত চাপ কমায়। যদিও অল্প অল্প করে।
  • পুরুষ যৌন অক্ষমতা। এটা অনেকেই জানেন যে কালোজিরার তেল পুরুষের শুক্রাণু বৃদ্ধি করে। এবং যৌন শক্তি বৃদ্ধি করে।

উপরে বর্ণিত কালোজিরার উপকারিতাগুলো প্রমাণিত। এছাড়াও আরো কিছু উপকারিতা আছে যেগুলো এখনো প্রমাণিত নয় তবে সম্ভাবনা আছে।

  • চোরা জ্বর। চোরা জ্বরজনিত কারণে অনেক শরীরে এলার্জি বের হয়। বিশেষ করে স্যাত স্যাতে আবহাওয়ায়। এর চিকিৎসায় কালোজিরার তেল উপকারী।
  • একজিমা। কালোজিরার তেল খেলে একজিমা, চুলকানির সমাধান পাওয়া যায়।
  • ক্যান্সার চিকিৎসার কারনে ভগ্ন রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা। বিশেষত শিশুদের ক্যান্সার চিকিৎসার সময় রক্তের শ্বেত ক্ষণিকা স্বল্পতার কারণে সৃষ্ট জ্বরের উপশমে খাবারের সাথে কালোজিরা খাওয়ানো উপকারী। এটা প্রমাণিত।
  • মনোযোগ এবং স্মৃতিশক্তি। নিয়মিত কালোজিরা সেবন করলে ছেলে শিশু এবং পুরুষের স্মৃতিশক্তি ও মনোযোগ ক্ষমতা বৃদ্ধি পায়।
  • বদহজম। কালোজিরার তেল, মধু, এবং পানি মিশিয়ে খেলে বদহজম দূর হয়।
  • মৃগী রোগ। কালোজিরার দানা বাচ্চাদের মৃগী রোগ কমায়।
  • গ্যাস্ট্রিক, আলসার। পাকস্থলীর আলসার ঠেকাতে অমিপ্রাাজলের সাথে কালোজিরা গুড়ো খেলে উপকার পাওয়া যায়।
  • হাই কোলেস্টেরল। কিছু গবেষণায় প্রমাণ পাওয়া গেছে যে ভাঙা কালোজিরা রক্তের ক্ষতিকর কোলেস্টেরল এলডিএল কমায় এবং এইচডিএল বাড়ায়।

এতো যার উপকারী দিক, তার কি কোনো ক্ষতিকর দিক নেই? ঠিক সেরকম অর্থে নেই বললেই চলে। তবে, শারীরিক অবস্থার উপর নির্ভর করে ক্ষেত্র বিশেষে কালোজিরা সেবন না করা উত্তম।

  • নিম্ন রক্ত চাপ। দেখা যায় যে নিম্ন রক্ত চাপের বেলায় কালোজিরা রক্তকে আরো নিচু করে। ফলে রক্তের চাপ একেবারেই লো বা কমে হয়ে যায়।
  • কাটাছেঁড়া। কাটাছেঁড়াতে কালোজিরা না খাওয়াই উত্তম। কারণ কালোজিরা রক্তের জমাট বাঁধতে বাধা দেয়।
  • সার্জারি। কালোজিরা ব্যবহার করলে যেহেতু রক্ত জমাট বাঁধতে সময় নেয় তাই, সার্জারি করার দুই সপ্তাহের মধ্যে কালোজিরা না খাওয়াই উত্তম।
error: Content is protected !!