কর ফাঁকিবাজদের কালো তালিকায় শীর্ষে নেইমার

গত কিছুদিন আগে মাঠে প্রতিপক্ষ খেলোয়াড়ের সঙ্গে জড়িয়েছেন বাদানুবাদে ব্রাজিলিয়ান তারকা নেইমার। একজনের মাথায় চাটি মেরে তো লাল কার্ডও দেখেছেন। উঠেছে বর্ণবাদের অভিযোগ। এবার পুরোনো এক অভিযোগই উঠেছে নতুন করে। স্প্যানিশ কর কর্তৃপক্ষ কর ফাঁকি দেওয়াদের একটি কালো-তালিকা তৈরি করেছে। সেখানে প্যারিস সেন্ট জার্মেইয়ের খেলোয়াড় (পিএসজি) নেইমার শীর্ষস্থানে রয়েছেন!

স্প্যানিশ কর কর্তৃপক্ষ এ নিয়ে আজ (৩০ সেপ্টেম্বর) আনুষ্ঠানিক তথ্য প্রকাশ করেছে। সেখান থেকে তথ্য নিয়ে সংবাদ সংস্থা এএফপি জানিয়েছে, নেইমারের বকেয়া করের পরিমাণ ৩৪.৬ মিলিয়ন ইউরো (বাংলাদেশি মুদ্রায় প্রায় ৩৪৪ কোটি ৩৯ লাখ টাকা)। স্প্যানিশ কর কর্তৃপক্ষের কালো-তালিকায় নামসংখ্যা হাজারের বেশি, তার মধ্যের নেইমারের বকেয়া করের পরিমাণই সবচেয়ে বেশি। ২০১৩ থেকে ২০১৭ পর্যন্ত বার্সেলোনায় ছিলেন নেইমার। দলবদলের বিশ্ব রেকর্ড গড়ে তিন বছর আগে প্যারিস সেন্ট জার্মেইয়ের (পিএসজি) যোগ দেন ব্রাজিলিয়ান তারকা। নেইমার বার্সায় থাকতেই তাঁর বিপক্ষে কর ফাঁকির অভিযোগ উঠেছে এবং তা গড়ায় আদালত পর্যন্তও।

কর ফাঁকি দেওয়া নিয়ে গত বছর থেকেই পিএসজি ফরোয়ার্ডের পেছনে লেগেছে স্প্যানিশ কর কর্তৃপক্ষ—তা আগেই জানিয়েছে দেশটির সংবাদমাধ্যম। তবে এ নিয়ে এবারই প্রথমবার আনুষ্ঠানিকভাবে তথ্য প্রকাশ করল তারা। তবে স্প্যানিশ কর কর্তৃপক্ষ এএফপি নিশ্চিত করেনি, সান্তোস থেকে নেইমারকে কেনার সময় বার্সাকে নিয়ে যে বিতর্ক উঠেছিল তার সঙ্গে এই কর ফাঁকির অঙ্কের কোনো যোগসূত্র আছে কি না। তবে প্রতিষ্ঠানটি জানিয়েছে, নানা কারণে কর ফাঁকির তালিকায় ওপরের দিকে নাম থাকে, এর মধ্যে বেঁধে দেওয়া সময়ের মধ্যে বকেয়া কর পরিশোধ করতে না পারার ব্যর্থতাও আছে।

সান্তোস থেকে নেইমারকে ২০১৩ সালে কেনে বার্সা। গত বছর স্প্যানিশ সংবাদমাধ্যম জানিয়েছিল, বার্সার সঙ্গে চুক্তির মেয়াদ বাড়ানোর সময় বোনাসের অঙ্ক তাঁর রেকর্ড দলবদল নিয়ে তদন্ত করছে স্প্যানিশ কর কর্তৃপক্ষ। এ দুটি বিষয়ে ব্রাজিল তারকা কর পরিশোধ করেছেন কি না সেটি ছিল তদন্তের বিষয়। স্প্যানিশ সংবাদমাধ্যম ‘মার্কা’ জানিয়েছিল, বার্সায় চার মৌসুম খেলার বকেয়া কর হিসেবে নেইমারের কাছে সাড়ে ৩ কোটি ইউরো দাবি করেছে কর কর্তৃপক্ষ। মূলত বার্সায় বোনাস ও পিএসজিতে যাওয়ার চুক্তিপত্র নিয়েই এ জটিলতা।
প্রসঙ্গত, মার্শেইয়ের বিপক্ষে ম্যাচে ঝামেলার রেশ এখনও টানতে হচ্ছে প্যারিস সেন্ট জার্মেইয়ের (পিএসজি) খেলোয়াড়দের। প্রতিপক্ষ খেলোয়াড়ের মাথায় টোকা মারায় দুই ম্যাচ নিষিদ্ধ হয়েছেন নেইমার। এবার আরও বড় শাস্তি হলো তার সতীর্থ অ্যাঞ্জেল ডি মারিয়ার।

ফরাসি লিগ কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, ডি মারিয়াকে চার ম্যাচের জন্য নিষিদ্ধ করা হয়েছে। আর্জেন্টাইন ফরোয়ার্ডের বিরুদ্ধে অভিযোগ-তিনি প্রতিপক্ষ খেলোয়াড়কে থুতু মেরেছেন। যদিও লিগ কর্তৃপক্ষ নিষিদ্ধ করার কারণ হিসেবে থুতু ছিটানোর কথা উল্লেখ করেনি।

তবে ম্যাচের পর মার্শেইয়ের কোচ আন্দ্রে ভিলাস বোয়াস অভিযোগ করেছিলেন, তার দলের ডিফেন্ডার আলভারো গঞ্জালেসকে থুতু মেরেছেন ডি মারিয়া। এই গঞ্জালেসেরই মাথায় টোকা মেরে নিষিদ্ধ হন নেইমার।

গত ১৪ সেপ্টেম্বরের ম্যাচে খেলার চেয়ে মারামারিই বেশি হয় দুই পক্ষের মধ্যে। উত্তেজনাপূর্ণ ম্যাচে ১২টি হলুদ এবং ৫টি লাল কার্ড দেখান রেফারি। লাল কার্ড পান পিএসজির লিয়ান্দ্রো পারেদেস ও লেভিন কুরজাওয়া এবং মার্শেইর দারিও বেনেদেত্তো ও জর্দান আমাভি।

পরে ভিএআর দেখে পিএসজির ব্রাজিলিয়ান তারকা নেইমারকেও লাল কার্ড দেখান রেফারি। তারা সবাই নিষেধাজ্ঞা পেয়েছেন। ডি মারিয়ার নিষেধাজ্ঞা তাতে সর্বশেষ সংযোজন।

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

error: Content is protected !!