করোনায় সুস্থ হয়ে অনন্য নজির গড়লেন তাবলিগের শত শত সদস্য

কয়েকদিন আগে ভারতের রাজধানী নয়াদিল্লির নিজামুদ্দিন মারকাজে অংশ নেয় কয়েক হাজার তাবলিগ সদস্য। তাবলিগ জামাতে অংশ নেওয়ার জন্য হাজির হওয়ার পর দেশজুড়ে শুরু হয়ে লকডাউন।এতে মসজিদেই আশ্রয় নিতে বাধ্য হন তাবলিগ সদস্যরা। তাদের বেশ কয়েকজন করোনায় আক্রান্ত হয়। এ নিয়ে দেশটিতে চলছে মুসলিম বিদ্বেষ। তাবলিগ সদস্যদের করোনায় আক্রান্তের জের ধরে দেশটিতে বিদ্বেষ ছড়িয়ে দিচ্ছে উগ্রবাদীরা। করোনা ছড়িয়ে দেওয়ার অভিযোগ আদালতে মামলাও হয়েছে। এখন পর্যন্ত কয়েক হাজার তাবলিগ সদস্যকে কোয়ারেন্টিনে রাখা হয়েছে।

এবার দেশটিতে মানবিকতার অনন্য নজির গড়লেন করোনায় আক্রান্ত হওয়ার পর সুস্থ হয়ে ওঠা তাবলিগ জামাতের শত শত সদস্য। দেশটির বিভিন্ন প্রান্তের তাবলিগ জামাতের কয়েকশকর্মী সুস্থ হয়ে ওঠার পর গুরুতর অসুস্থ রোগীদের রক্তের প্ল্যাজমা দান করেছেন। তাবলিগ জামাতের সদস্যদের দেয়া প্ল্যাজমায় সুস্থ হয়ে ওঠার স্বপ্ন দেখছেন করোনায় গুরুতর অসুস্থ শত শত রোগী।

জানা গেছে, ভারতের রাজধানী নয়াদিল্লি, গুজরাট, হরিয়ানা এবং অন্যান্য প্রদেশে তাবলিগের স্বেচ্ছাসেবীরা প্ল্যাজমা দান করেছেন। এছাড়া যেসব রাজ্য এখনও প্ল্যাজমা চিকিৎসা পদ্ধতির অনুমতি দেয়নি; সেসব রাজ্যেও তাবলিগ জামাতের অনেক সদস্য প্ল্যাজমা দান করার জন্য অঙ্গীকার করেছেন। কর্তৃপক্ষের অনুমতি মিললেই তারা প্ল্যাজমা দেবেন।

দিল্লির স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তা চিকিৎসক মোহাম্মদ শোয়েব আলী করোনা থেকে সুস্থ হয়ে ওঠা ব্যক্তিদের শরীর থেকে রক্তের প্ল্যাজমা সংগ্রহের কাজ সমন্বয় করছেন। তিনি বলেন, দিল্লিতে তাবলিগ জামাতের দুই শতাধিক সদস্য প্ল্যাজমা দানের প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন; তবে এই সংখ্যা আরও বাড়তে পারে। ইতোমধ্যে রোববার তাবলিগের ১০ সদস্য ইফতারির পর এসে প্ল্যাজমা দিয়ে গেছেন।

এর আগে দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল একদিন আগেই সুস্থ হয়ে ওঠা ব্যক্তিদেরকে গুরুতর অসুস্থ করোনা রোগীদের বাঁচাতে প্ল্যাজমা দান করার আহ্বান জানিয়েছিলেন। তার আহ্বানে সাড়া দিয়ে তাবলিগ জামাতের কয়েকশ সদস্য প্ল্যাজমা দানে এগিয়ে আসেন।

ভারতে তাবলিগ জামাতের প্রধান মাওলানা মুহাম্মদ সাদ ও তার অনুসারী যারা করোনা থেকে সুস্থ হয়ে উঠেছেন; তাদের সবাইকে প্ল্যাজমা দানে এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়েছেন।

অল ইন্ডিয়া মুসলিম পারসোনাল ল বোর্ডের নির্বাহী সদস্য ও চেন্নাইয়ের বাসিন্দা মাওলানা শামস উদ্দিন কাসিমি বলেন, আমরা তামিলনাড়ুতে প্ল্যাজমা তারতিব জামাত নামে একটি গ্রুপ তৈরি করেছি। এই গ্রুপ তাবলিগ জামাতের সাড়ে চারশ’র বেশি সদস্যদের নাম তালিকাভূক্ত করেছে; যারা প্ল্যাজমা দানে আগ্রহ প্রকাশ করেছেন।

করোনা থেকে মুক্ত হওয়ার পর অন্তত ১৪ দিন পর রক্তের প্ল্যাজমা সংগ্রহ করা হয়। সুস্থ হয়ে ওঠার ব্যক্তির শরীরে করোনাভাইরাস প্রতিরোধের ক্ষমতা তৈরি হয়। এই সুস্থ ব্যক্তির রক্ত থেকে প্ল্যাজমা নেয়ার পর তা করোনাক্রান্ত অসুস্থ ব্যক্তির শরীরে প্রয়োগে সাফল্য মিলছে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে। একজন ব্যক্তির শরীর থেকে ১০০ মিলিলিটার প্ল্যাজমা নেয়া যায়। আর এতে সময় লাগে প্রায় ৪০ মিনিট।

প্রসঙ্গত, গত মাসের শেষের দিকে দিল্লির নিজামুদ্দিন মারকাজ মসজিদে তাবলিগ জামাতের সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। দেশটির কর্মকর্তাদের ধারণা, এতে অন্তত ৯ হাজার মানুষ অংশ নেন।যাদের অনেকেই বিদেশি। নিজামুদ্দিন মারকাজ মসজিদের তাবলিগ জামাতের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট ২৫ হাজারের বেশি কর্মীকে কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়। ভারতে করোনাভাইরাসের হটস্পট হিসাবে তাবলিগের এই সমাবেশকে শনাক্ত করা হয়। পরে এই সমাবেশে তাবলিগ জামাতের অংশগ্রহণকারী এ নিয়ে দেশটির বিভিন্ন রাজনৈতিক দল তাবলিগ জামাতের নেতাদের তীব্র সমালোচনা করে আসছেন। এমনকি বিজেপির এক নেতা করোনা ছড়ানোর দায়ে তাবলিগের সদস্যদের গুলি করে হত্যা করা দরকার বলে মন্তব্যও করেন। 

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

error: Content is protected !!