করোনার মতো ৬ ভাইরাসের সন্ধান মিলেছে মিয়ানমারে

কোভিড-১৯ এর সঙ্গে মিল পাওয়া যায় এমন ছয়টি ভাইরাস বাদুড়ের দেহে পাওয়া গেছে বলে বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন। মিয়ানমারে জরিপ চালানোর সময় সম্পূর্ণ নতুন এ ছয় ধরনের করোনাভাইরাসের সন্ধান পাওয়া যায় বলে জানা গেছে।

তবে গবেষকরা বলছেন, নতুন এসব ভাইরাস জিনগতভাবে সার্স বা কোভিড-১৯ ভাইরাসের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট নয়। বিজ্ঞান বিষয়ক ওয়েবসাইট লাইভ সাইন্স জানিয়েছে, গত ৯ এপ্রিল প্লাস ওয়ান জার্নালে এই গবেষণা প্রতিবেদন প্রকাশ হয়েছে।

২০০২-০৩ সালে বিশ্বজুড়ে করোনাভাইরাসের গোত্রভুক্ত সার্স মহামারি আকারে ছড়িয়ে পড়ে।

মিয়ানমারে সরকারি অর্থায়নে প্রেডিক্ট নামে এক কর্মসূচির আওতায় ওই জরিপ চালানো হয়। প্রাণি থেকে মানুষে সংক্রমিত হতে পারে এমন সংক্রামক রোগ শনাক্ত করতে এই জরিপ চালানো হচ্ছে। আর এখন পর্যন্ত স্তন্যপায়ী প্রাণী বাদুড়ের মধ্যে কয়েক হাজার করোনাভাইরাস পাওয়া গেছে।

কোভিড-১৯ ভাইরাসও বাদুড় থেকে এসেছে বলে ধারণা করা হয়, তবে বাদুড় থেকে মানুষে সংক্রমিত হওয়ার আগে তৃতীয় কোনও প্রাণির শরীরে এটি অন্তর্বর্তীকালীন অবস্থান নিয়েছিল বলে ধারণা করছেন বিজ্ঞানীরা।

জরিপের অংশ হিসেবে ২০১৬ থেকে ২০১৮ সালের মধ্যে বাদুড়ের ১১টি প্রজাতি থেকে শত শত লালা ও মলের নমুনা সংগ্রহ করা হয়। মিয়ানমারের অন্তত তিনটি স্থান থেকে এসব নমুনা সংগ্রহ করা হয়। এসব স্থানে বাদুড়ের আবাসস্থলের কাছে নানা কারণে মানুষের যাতায়াত রয়েছে।

নতুন পাওয়া এসব করোনাভাইরাস অন্য প্রজাতিতে যেতে পারে কিনা কিংবা মানুষের ওপর তা কী ধরনের প্রভাব ফেলতে পারে তা নিয়ে আরও গবেষণা প্রয়োজন বলে জানিয়েছেন বিজ্ঞানীরা।

প্রসঙ্গত, মহামারী আকারে ছড়িয়ে পড়া করোনাভাইরাসে বিশ্বে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ১ লাখ ৮ হাজার ৮২৭ জন। আক্রান্ত হয়েছে বিশ্বের ১৭ লাখ ৮০ হাজার ৩১৪ মানুষ। এ ভাইরাসের প্রতিষেধক আবিষ্কারে দেশে দেশে চলছে গবেষণা। বাংলাদেশে দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে আরও ৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে মৃত্যুর সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ালো ৩৪ জনে। এছাড়া নতুন করে করোনায় আক্রান্ত হিসেবে শনাক্ত হয়েছেন আরও ১৩৯ জন। মোট আক্রান্তের সংখ্যা ৬২১ জন।

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

error: Content is protected !!