করোনার ভ্যাকসিন নিশ্চিতে তহবিল গঠন বিশ্বনেতাদের

বিশ্বব্যাপী মৃতের সংখ্যা পাঁচ লাখ ছাড়িয়েছে মহামারি নভেল করোনাভাইরাসে । ওয়ার্ল্ডোমিটারের তথ্য অনুযায়ী, বিশ্বের ২১৩টি দেশ, বিভিন্ন অঞ্চল ও দুটি আন্তর্জাতিক অঞ্চলে এ ভাইরাসে প্রাণহানির পাশাপাশি আক্রান্ত শনাক্তও ছাড়িয়েছে এক কোটি। যুক্তরাষ্ট্রে ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আক্রান্ত হয়েছে ৪৪ হাজার। করোনায় সংক্রমণ বাড়ায় ফ্লেরিডা ও টেক্সাসে পুনরায় লকডাউন দেওয়া হচ্ছে। দক্ষিণ আমেরিকার দেশ ব্রাজিলে একদিনে ৩৮ হাজার মানুষের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়েছে। প্রতিবেশী দেশ ভারতেও করোনার সংক্রমণ ঊর্ধ্বমুখী। এদিকে, সবার জন্য করোনার ভ্যাকসিন নিশ্চিত করতে তহবিল গঠন করছেন বিশ্বনেতারা। বার্তা সংস্থা রয়টার্স এ খবর জানিয়েছে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা যে পূর্বাভাস দিয়েছিল, তা মিলে গেল পুরোটাই। বিশ্বজুড়ে করোনায় আক্রান্ত শনাক্তের সংখ্যা এক কোটির গণ্ডি পেরিয়েছে গতকাল শনিবার রাতে। আর, করোনায় মৃত্যু ছুঁয়ে ফেললো পাঁচ লাখের ঘর।

যুক্তরাষ্ট্রে করোনাভাইরাসের দৈনিক সংক্রমণে আগের রেকর্ড ছাপিয়ে যাওয়ার ধারাবাহিকতা অব্যাহত আছে। ফ্লেরিডা ও টেক্সাসে সংক্রমণ ব্যাপকভাবে বাড়তে থাকায় পুনরায় লকডাউন দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

মৃতের সংখ্যার নিরিখে যুক্তরাষ্ট্রের পরই রয়েছে ব্রাজিল। সংক্রমণ কমে আসার কোনো লক্ষণ নেই সেখানে। এ ছাড়া এর মধ্যেই মেক্সিকোতে গত কয়েক সপ্তাহে মৃত্যু আর আক্রান্ত বাড়ছে হু হু করে। তবে করোনাভাইরাসে ইতালিতে গতকাল শনিবার মাত্র আটজনের মৃত্যু হয়েছে। গত ১১৮ দিনের মধ্যে যা সর্বনিম্ন মৃত্যু।

এদিকে ভারতে কিছুতেই নিয়ন্ত্রণে আনা যাচ্ছে না পরিস্থিতি। করোনায় আক্রান্ত রোগীর বিচারে বিশ্বে চতুর্থ অবস্থানে দেশটিতে প্রতিদিন নতুন করে শনাক্তের রেকর্ড হচ্ছে।

এদিকে, করোনা মহামারি ঠেকাতে তহবিল গঠনের উদ্যোগ নিয়েছেন বিশ্বনেতারা। বিশ্বজুড়ে ছড়িয়ে পড়া কোভিড-১৯ রোগের চিকিৎসায় প্রয়োজনীয় ওষুধ ও টিকা তৈরির জন্য প্রাথমিকভাবে ৬ দশমিক ৯ বিলিয়ন (৬৯০ কোটি) ডলার তহবিল যোগাড় হয়েছে। ইউরোপীয় কমিশন ও অ্যাডভোকেসি গ্রুপ গ্লোবাল সিটিজেন যৌথভাবে এ বৈঠকের আয়োজন করে। বৈঠকে অংশ নেন যুক্তরাজ্য, কানাডা, ফ্রান্স, জার্মানি, নিউজিল্যান্ড, সংযুক্ত আরব আমিরাতসহ আরো অনেক দেশের সরকার ও রাষ্ট্রপ্রধান। তাঁদের চাওয়া, ধনী-গরিব নির্বিশেষে সব দেশের জন্য ভ্যাকসিন তৈরি।

কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো বৈঠকে বলেন, ‘করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে যুদ্ধের পাশাপাশি সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্তদের পাশে দাঁড়াতে হবে আমাদের। তাদের চ্যালেঞ্জগুলো একসঙ্গে মোকাবিলা করতে হবে।’

ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন বলেন, ‘টেস্ট বাড়ানো, উন্নত চিকিৎসা এবং ভ্যাকসিন তৈরির দৌড় অব্যাহত রাখতে হবে। যারাই ভ্যাকসিন আবিষ্কার করুক, বিশ্বনেতা হিসেবে তাদের নৈতিক দায়িত্ব হবে, তা সবাইকে পৌঁছে দেওয়া।’

ইউরোপিয়ান কমিশনের প্রেসিডেন্ট উরসুলা ভন ডার লিয়েন বলেন, ‘অতিদ্রুত ভ্যাকসিন তৈরির জন্য অর্থায়ন বাড়াতে হবে। এজন্য একতা প্রয়োজন। সবাই এগিয়ে এলে কোভিড-১৯-কে হারাতে পারবো আমরা।’

অন্যদিকে, যুক্তরাজ্যের অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকদের তৈরি করা ভ্যাকসিনটি ব্রাজিলে উৎপাদনের জন্য ব্রিটিশ ওষুধ কোম্পানি অ্যাস্ট্রাজেনেকার সঙ্গে ১২৭ মিলিয়ন (১২ কোটি ৭০ লাখ) ডলারের তারা একটি চুক্তি স্বাক্ষর করেছেন ।

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

error: Content is protected !!