করোনার জন্য এবার চীনকে দায়ি করলো অষ্ট্রেলিয়া

প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস বিশ্বে ছড়িয়ে দেওয়া ও তথ্য গোপনের জন্য চীনকে দায়ি করে আসছে আমেরিকা। এবার একই অভিযোগ তুলেছে অষ্ট্রেলিয়াও। অস্ট্রেলিয়া সরকারের এ ধরণের বক্তব্যের নিন্দা জানিয়েছে বেইজিং।

অস্ট্রেলিয়ার রাজধানী ক্যাানবেরায় অবস্থিত চীনের দূতাবাস বলেছে, করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের জন্য চীন দায়ী বলে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প এবং তার প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা যে অভিযোগ তুলছেন অস্ট্রেলিয়ার কর্মকর্তারাও ‌একই অভিযোগের পুনরাবৃত্তি করছেন।

গতকাল মঙ্গলবারের শেষ দিকে দূতাবাস থেকে প্রকাশিত এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, “এটা সবাই ভালোকরেই জানে যে আমেরিকার কিছু ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাসহ দেশটির কিছু ব্যক্তি চীন বিরোধী ‘তথ্য-ভাইরাস’ ছড়ানোর কাজে লিপ্ত রয়েছে। এসব মার্কিনীদের পথ অনুসরণ করে এখন অস্ট্রেলিয়ার কিছু রাজনীতিকও একই কাজে নেমে পড়েছেন এবং সরাসরি চীনের বিরুদ্ধে রাজনৈতিক হামলা চালিয়ে যাচ্ছেন।”

অস্ট্রেলিয়ার সিডনিতে করোনাভাইরাসের জন্য ফ্রি স্ক্রিনিং করার ব্যবস্থা আছে এমন একটি ইলেক্ট্রনিক বিজ্ঞাপন
আজ (বুধবার) অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী স্কট মরিসন বলেছেন, করোনাভাইরাসের মহামারী ছড়িয়ে পড়ার বিষয়ে একটি আন্তর্জাতিক তদন্ত চালানোর জন্য আমেরিকার পক্ষ থেকে সমর্থনের ব্যাপারে তিনি প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের সঙ্গে টেলিফোনে কথা বলেছেন। করোনাভাইরাসের ঝুঁকির বিষয়ে বিশ্বকে সঠিক সময়ে স্বচ্ছতার সঙ্গে সতর্ক করতে ব্যর্থ হওয়ার জন্য মরিসন চীনকে অভিযুক্ত করেন। এর ফলে অস্ট্রেলিয়া ব্যাপক আর্থিক ক্ষতির মুখে পড়েছে বলেও জানান তিনি।

এদিকে, মরিসনের দফতর জানিয়েছে যে তিনি এ বিষয়ে জার্মানির চ্যাঞ্চেলর এঙ্গেলা মার্কেল এবং ফরাসির প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাকরনের সঙ্গেও টেলিফোনে কথা বলেছেন।

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

error: Content is protected !!