করোনায় মারা গেলেন বাংলাদেশ ব্যাংকের উপদেষ্টা

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন বাংলাদেশ ব্যাংকের চেঞ্জ ম্যানেজমেন্ট উপদেষ্টা ও সাবেক ডেপুটি গভর্নর মো. আল্লাহ মালিক কাজেমী (ইন্না লিল্লাহি…রাজিউন)। শুক্রবার (২৬ জুন) বিকেলে রাজধানীর এভার কেয়ার হাসপাতালে (সাবেক অ্যাপোলো হাসপাতাল) চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। তার বয়স হয়েছিল ৭২ বছর।

বাংলাদেশ ব্যাংকের সহকারী মুখপাত্র ও কমিউনিকেশন্স অ্যান্ড পাবলিকেশন্স বিভাগের মহাব্যবস্থাপক জী. এম. আবুল কালাম আজাদ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, আল্লাহ মালিক কাজেমী হার্টের সমস্যা নিয়ে এভার কেয়ার হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন। পরে করোনা পরীক্ষায় তার পজিটিভ আসে। চিকিৎসাধীন অবস্থায় শুক্রবার বিকেল ৬টা ৫ মিনিটে তার মৃত্যু হয়।

তিনি স্ত্রী, ২ মেয়ে ও এক ছেলেসহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন।

পরিবার সূত্রে জানা গেছে, আল্লাহ মালিক কাজেমীর ছেলে ও স্ত্রী দেশে থাকেন। আর চাকরি সূত্রে বড় মেয়ে থাকেন লন্ডনে। ছোট মেয়ে উচ্চতর ডিগ্রি নিতে বর্তমানে যুক্তরাষ্ট্রে রয়েছেন।

আল্লাহ‌ মালিক কাজেমীকে শনিবার সকালে রায়েরবাজার বুদ্ধিজীবী কবরস্থানে সরকারি নিয়মে দাফন করা হবে বলে জানা গেছে। পরিবারের পক্ষ থেকে মারকাজের মাধ্যমে দাফনের প্রস্তাব করা হলেও শেষ পর্যন্ত তারা এ ব্যাপারে নিশ্চিত হতে পারেননি।

বাংলাদেশ ব্যাংক সূত্রে জানা গেছে, আল্লাহ মালিক মাজেমী ১৯৭৬ সালে সহকারী পরিচালক হিসেবে বাংলাদেশ ব্যাংকে যোগ দেন। ডেপুটি গভর্নর পদ থেকে ২০০৬ সালে অবসরে যান তিনি। পরে একই পদে আরও এক বছর চুক্তিভিত্তিক কাজ করেন তিনি। এরপর ২০০৮ সাল থেকে তিনি বাংলাদেশ ব্যাংকের উপদেষ্টা হিসেবে কাজ করেন। তার আপত্তি সত্ত্বেও চলতি বছরের শুরুর দিকে চুক্তির মেয়াদ একবছর বাড়ানো হয়েছিল। বিদেশি সংস্থা ও বিভিন্ন বাণিজ্যিক ব্যাংকে বড় অংকের বেতনের চাকরির প্রস্তাব পেয়েও বার বার তা প্রত্যাখ্যান করেন তিনি। মুদ্রানীতি প্রণয়ন, বৈদেশিক মুদ্রা ব্যবস্থাপনাসহ কেন্দ্রীয় ব্যাংকিংয়ের বিভিন্ন বিষয়ে তার জ্ঞান ছিল অপরিসিম। তিনি ছিলেন ব্যাংক খাতের শিক্ষক তুল্য। তার মৃত্যুতে কেন্দ্রীয় ব্যাংকসহ পুরো ব্যাংক খাতে শোকের ছায়া নেমে এসেছে।

কাজেমীর মৃত্যুতে শোক:

বিশিষ্ট ব্যাংকার ও বাংলাদেশ ব্যাংকের উপদেষ্টা আল্লাহ মালিক কাজেমীর মৃত্যুতে গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। এক শোকবার্তায় তিনি মরহুমের বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করেন এবং তার শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান।

বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ড. আতিউ রহমান এক শোক বার্তায় বলেন, কাজেমী ভাইয়ের এভাবে চলে যাওয়া কিছুতেই মেনে নিতে পারছি না। তিনি শুধু একজন নিপাট ভলো মানুষ ও দক্ষ কেন্দ্রীয় ব্যাংকারই ছিলেন না, ছিলেন একটি প্রতিষ্ঠান। কি গভীর ছিল তার বহুমাত্রিক জ্ঞানের ভাণ্ডার তা অনেকেরই অজানা। কেন্দ্রীয় ব্যাংকিং ও আর্থিক খাত বিষয়ক এক চলন্ত এনসাইক্লোপিডিয়া আল্লাহ মালিক কাজেমী চলে যাবার কারণে যে শূন্যতা তৈরি হলো তা পূরণ হবার নয়। তার বিদেহী আত্মার শান্তি কামনা করছি। তার পরিবারের সদস্য ও বাংলাদেশ ব্যাংকের মর্মাহত সহকর্মীদের প্রতি সমবেদনা জানাচ্ছি।

আল্লাহ্ মালিক কাজেমীর দীর্ঘদিনের সহকর্মী ও বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক ডেপুটি গভর্নর মো. আবুল কাসেম সমকালকে বলেন, আল্লাহ মালিক কাজেমী ব্যাংকিং বিষয়ে সব চেয়ে জ্ঞানি ও নির্লোভ ব্যক্তি। কেন্দ্রীয় ব্যাংকার বা বাণিজ্যিক ব্যাংক কেউই তার সমপরিমাণ জ্ঞান রাখতো না। এখন যে মুদ্রানীতি স্টেটমেন্ট প্রকাশ করা হয় তার প্রায় ৯০ শতাংশ কাজ করতেন তিনি একা। বাকি ১০ শতাংশ অন্য সহকর্মীরা করতেন। বৈদেশিক মুদ্রা ব্যবস্থাপনা বিষয়ে তার ধারে কাছে কেউ জ্ঞান রাখতেন না। এরকম একজন গুণিজনকে হারানো শুধু ব্যাংকিং খাত নয়, দেশের জন্য অপূরণীয় ক্ষতি।

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

error: Content is protected !!