আমেরিকার স্বাধীনতা দিবস, ব্লাক লাইফ মেটার ও আমাদের করণীয়

হাসান আলী​

আজ ৪ঠা জুলাই (শনিবার) আমেরিকার স্বাধীনতা দিবস, ১৭৭৬ সালে আজ থেকে ২৪৪ বছর পূর্বে আমেরিকা স্বাধীনতা লাভ করে। স্বাধীনতার মূলমন্ত্র ছিল সকলের সমান অধিকার বিশেষ করে সুবিধা বঞ্চিত মানুষের মুখে হাসি ফুটানো ৷

১৭৮৯ সালে বিল অব রাইটে বাক স্বাধীনতা, সংবাদপত্রের স্বাধীনতা, ধর্মীয় স্বাধীনতা সহ সবার অধিকার প্রতিষ্ঠার কথা ছিল। বাস্তবে দেখা যায় মিনিসোটা অঙ্গরাজ্যে পুলিশ অফিসার আফ্রিকান আমেরিকান জর্জ ফ্লয়েডকে সবার সামনে শ্বাসরুদ্ধ করে হত্যা করে। নিউইয়র্কসহ আমেরিকার বড় বড় সিটির সাধারন মানুষ দৈনিক ১২ ঘন্টা কাজ করে ঘর ভাড়ার পয়সা রোজগার করতে পারে না। অনেক পেশাজীবী বছরে লক্ষ লক্ষ ও ব্যবসায়ীরা মিলিয়ন মিলিয়ন ডলার রোজগার করেন আর সাধারণ গরীব মানুষ কাজ করে ঘরভাড়া ও খাওয়ার টাকা রোজগার করতে পারেনা।

বাংলাদেশি আমেরিকানদের মধ্যে যোগ্য লোকের অভাব নেই। আমরা সম্মিলিতভাবে আমেরিকার ৪৫ মিলিয়ন অর্থাৎ ৪ কোটি ৫০ লক্ষ লোকের অর্থনৈতিক উন্নয়নে কাজ করে গেলে সুবিধা বঞ্চিত মানুষের সমস্যা সমাধানে ভূমিকা রাখতে পারব ইনশাল্লাহ। বাংলাদেশি আমেরিকান পেশাজীবী ও সমাজসেবীগণ মিলে নিজ নিজ এলাকার নির্বাচিত জনপ্রতিনিধি কাউন্সিলম্যান, এ্যাসেম্বলিম্যান/হাউসের সদস্য, কংগ্রেসম্যানের সাথে লবিং করে নীচের কাজগুলি করতে হবে

১) গ্রাজুয়েট যুবকদের জন্য সিটি, স্টেট ও ফেডারেল জবের ব্যবস্হা করা, ২)ব্যবসায়ীদের জন্য সিটি, স্টেট ও ফেডারেল গ্রান্ট/ঋণের ব্যবস্থা করা ও ব্যবসায়ের কন্ঠাক্ট পেতে সহায়তা করা, ৩) প্রতিটি কংগ্রেসনাল ডিষ্ট্রিকে যুব সেন্টার স্থাপন করে কম্পিউটার ট্রেনিংসহ সময় উপযোগী কর্মের ট্রেনিংয়ের ব্যবস্থা করা, ৪) প্রতিটি মসজিদ এলাকায় ফেডারেল ফান্ডে সিনিয়র সেন্টার স্হাপন করা৷ বাংলাদেশি আমেরিকানরা নিজ নিজ এলাকার লোকদের সমস্যা সমাধানে ভূমিকা রাখতে পারলে আগামীতে কাউন্সিলম্যান, অ্যাসেম্বলিম্যান, স্টেট সিনেটর, কংগ্রেসম্যান, মেয়র, গভর্নর পদে প্রার্থী হলে সাধারন মানুষের ভোট পেতে সহায়ক হবে। আমেরিকার উন্নয়নে বাংলাদেশি আমেরিকান ড. ফজলুর রহমান খান আশির দশকে বিশ্বের সর্ব উচ্চ বিল্ডিং তৈরি করে অমর হয়ে আছেন, বর্তমানে ড. আতাউল করিম মেগনেটিক ট্রেন আবিষ্কার করেন।

বাংলাদেশি আমেরিকানরা টাক্স দিয়ে আমেরিকার ফেডারেল ফান্ডকে সমৃদ্ধি করিতেছেন। আমেরিকায় ৮ লক্ষের উপরে বাংলাদেশির মধ্যে ৫ হাজার ইঞ্জিনিয়ার, ২ হাজার ডাক্তার,৮ শত ফার্মাসিস্ট, ৩০ হাজার বাড়ীর মালিক ও শত শত ব্যবসায়ী আছেন। আমরা সবাই মিলে আফ্রিকান আমেরিকান, হিস্পানিক আমেরিকান ও এশিয়ান আমেরিকান ও মুসলিম আমেরিকানদের উন্নয়নে কাজ করব ইনশা আল্লাহ।

আমেরিকার বিভিন্ন স্টেটে অবস্থানরত সমাজসেবী ও পেশাজীবীদের নিয়ে আমি হাসান আলী আগামীতে যোগাযোগ করে কর্মতৎপরতা ঠিক করার চেষ্টা চালিয়ে যাব ইনশা আল্লাহ ৷

বিঃদ্রঃ-ফেসবুকের সন্মানিত বন্ধুগণ আপনাদের মতামত জানিয়ে সমাজকে এগিয়ে নেওয়ার বিনীত অনুরোধ রইলো ৷

হাসান আলী, প্রেসিডেন্ট অর্গানাইজেশন অব বাংলাদেশী আমেরিকান্স ৷

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

error: Content is protected !!