November 29, 2020

মাই পেটারসন. লাইফ

ভয়েস অফ দ্যা কমিউনিটি

আবেগঘন ভাষণে ট্রাম্পের জন্য ভোট চাইলেন মেলানিয়া

ডোনাল্ড ট্রাম্পের প্রশংসা করে আসন্ন মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে তাকে ভোট দেয়ার জন্য আবেদন জানিয়েছেন স্ত্রী মেলানিয়া ট্রাম্প।ডয়চে ভেলে অনলাইন জানায়, রিপাবলিকান দলের সম্মেলনে দ্বিতীয় দিনে ভাষণ দেন মেলানিয়া। আগের দিন জ্বালাময়ী ভাষণ দিয়ে বাবার পক্ষে ভোট চান বড় ছেলে ডোনাল্ড ট্রাম্প জুনিয়র।

সোমবার উত্তর ক্যালিফোর্নিয়ার চারলোত্তিতে শুরু হওয়া এ সম্মেলনের প্রথম দিনেই ট্রাম্পের মনোনয়ন নিশ্চিত করা হয়।

এর মানে ৩ নভেম্বর বিশ্বের সবচেয়ে ক্ষমতাধর দেশটির প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ডেমোক্র্যাট পার্টির জো বাইডেনের সঙ্গে লড়বেন তিনি।

সম্মেলনের দ্বিতীয় দিন ট্রাম্পের জন্য ভোট চাওয়ার পাশাপাশি ভাষণে মেলানিয়া করোনা মহামারি ও বর্ণবাদের মতো কিছু প্রাসঙ্গিক বিষয়ও তুলে ধরেন।

নির্বাচনের আর ৭০ দিন বাকি। বিভিন্ন জনমত সমীক্ষা অনুযায়ী ট্রাম্প কোণঠাসা হয়ে পড়েছেন। জনপ্রিয়তার বিচারে এগিয়ে আছেন প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী জো বাইডেন।দলের সম্মেলনে একের পর এক বক্তা ট্রাম্পের পক্ষে ভাষণ দেন এবং বাইডেনকে কড়া ভাষায় আক্রমণ করেন।

কিন্তু মেলানিয়া ট্রাম্প সেই পথে না গিয়ে অনেক নরম সুরে স্বামীর পক্ষে বক্তব্য দেন। তিনি বলেন, প্রতিপক্ষকে আক্রমণ করে তিনি এই মূল্যবান সময় নষ্ট করতে চান না। কারণ এমন কথা দেশের মধ্যে বিভাজন আরও বাড়িয়ে তোলে, যেমনটা গত সপ্তাহে দেখা গেছে।

তিনি করোনা মহামারির কারণে সাধারণ মানুষের কষ্টের কথা তুলে ধরেন। ভাইরাসটিতে যুক্তরাষ্ট্রে এখন পর্যন্ত এক লাখ ৮০ হাজারের বেশি লোক মারা গেছেন।মেলেনিয়া বলেন, ‘আমি জানি অনেকেই দুশ্চিন্তাগ্রস্ত; অনেকে অসহায়ও বোধ করছেন। আমি জানাতে চাই, আপনারা একা নন।’

এই সংকট মোকাবিলায় স্বামীর আন্তরিকতা তুলে ধরতে মেলানিয়া বলেন, ‘এমন ভয়াবহ মহামারির ফলে ক্ষতিগ্রস্ত সব মানুষের দেখাশোনা করা পর্যন্ত ডোনাল্ড বিশ্রাম নেবে না।’

বর্ণবাদের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানাতে ন্যায়বিচারের নামে হিংসা ও লুটপাট বন্ধ করারও আবেদন জানান তিনি। তার ভাষ্য, ‘মানুষের ত্বকের রং দেখে কোনো অনুমান করা উচিত নয়।’

২০১৬ সালে রিপাবলিকান দলের কনভেনশনে ভাষণ দিয়ে বিপাকে পড়েছিলেন মেলানিয়া ট্রাম্প। ২০০৮ সালে প্রাক্তন ফার্স্ট লেডি মিশেল ওবামার ভাষণের বেশ কিছু অংশ চুরির অভিযোগ উঠেছিল তার বিরুদ্ধে।

করোনা সংকট ও তার পরিণাম হিসেবে বিপর্যস্ত অর্থনীতি সামলাতে ট্রাম্প ব্যর্থ হয়েছেন, এমন অভিযোগ খ-ন করতে এদিন একের পর এক বক্তা প্রেসিডেন্টের সাফল্য তুলে ধরেন।

হোয়াইট হাউসের অর্থনীতি বিষয়ক উপদেষ্টা ল্যারি কাডলো বলেন, অর্থনৈতিক সমৃদ্ধি, সুযোগ ও আশাবাদ চাইলে ভোটারদের ট্রাম্পকেই বেছে নিতে হবে। তা না হলে স্থবিরতা, মন্দা ও নৈরাশ্যের দিন ফিরে আসবে আবার ।

error: Content is protected !!