অরুণাচলে রেলপথ বানাচ্ছে চীন, মাথা ব্যথা শুরু ভারতের

ডেস্ক রিপোর্ট:

ভারতের সঙ্গে প্রায় ৪ হাজার ৩৮৮ কিলোমিটার এলাকাজুড়ে সীমানা রয়েছে চীনের। বেশ কয়েকবার সংঘর্ষেও জড়িয়েছে দুই দেশ। সম্প্রতি লাদাখ দিয়ে দুই দেশের মধ্যে উত্তেজনা বেড়েই চলেছে। চীনা সৈন্যদের হাতে ভারতের ২০ সৈন্য নিহত হওয়ার পর উত্তেজনায় নতুন মাত্রা যোগ দিচ্ছে। এর সাথে নেপালের সাথে হাত মিলিয়েছে চীন। একদিকে নেপাল অন্যদিকে চীন। করোনার মধ্যে এক সাথে দুই দেশকে মোকাবিলায়  ভাজ পড়েছে ভারতের কপালে। 

সীমান্তবর্তী অঞ্চলগুলিকে ব্যবহার করে ভারতের ভেতরে হামেশাই ঢুকে পড়ছে চীন। আগ্রাসী চীনকে প্রতিহত করতে সমরসজ্জাও শুরু করে দিয়েছে ভারত। তবে এরই মাঝে তিব্বতের মধ্যে দ্রুত গতিতে রেলপথ নির্মাণ করছে চীন। যা ২০২১ সালের মধ্যে শেষ করে ফেলার লক্ষ্যমাত্রা নিয়েছে চীনা সরকার। আর এই রেলপথ তৈরি হয়ে গেলে তা ভারতের অরুণাচল প্রদেশের সীমান্ত এলাকাকে ছুঁয়ে যাবে। যা নিয়ে নতুন করে মাথা ব্যথা শুরু হয়েছে ভারতের।

জানা গেছে, চলতি মাসের মধ্যেই চীনের নিজস্ব একটি সংস্থা এই রেললাইন তৈরির কাজ অনেকটাই সেরে ফেলেছে। তৈরি হয়ে গিয়েছে রেলব্রিজ। তিব্বতের ইয়ারলুং তাসানজোংপ এবং সিয়াং অঞ্চলের মধ্যে দিয়ে এই রেলব্রিজ নির্মাণ করা হচ্ছে। তিব্বতের যেখান থেকে ব্রহ্মপুত্র নদ শুরু হয়েছে। আর সেখান থেকে অরুণাচল প্রদেশের সীমান্ত মাত্র ৩০ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত। ফলে ভারতের এই রাজ্য নিয়ে ফের নতুন করে বিবাদ বাধাতে চাইছে চীন।

কারণ, এর আগেও চীন বহুবার অরুণাচল প্রদেশকে দক্ষিণ তিব্বতের অংশ বলে দাবি করে এসেছে। শুধু তাই নয়, গত বছর ডিসেম্বর মাসে অরুণাচল প্রদেশে প্রতিরক্ষা মন্ত্রী রাজনাথ সিং এর সফরের তীব্র বিরোধীতা করেছিলো চীন। এছাড়াও এখনও পর্যন্ত ভারতের অরুণাচল প্রদেশকে নিয়ে চীনের সীমান্ত সংঘাত মেটাতে এখনও পর‍্যন্ত প্রায় ২১ দফা বৈঠকও হয়ে গিয়েছে দুই দেশের। তবুও চিনের আগ্রাসী মনোভাব যায়নি এখনও।

যার ফলে তিব্বত থেকে অরুণাচল প্রদেশের সীমান্ত পর্যন্ত চীনের রেললাইন তৈরি নতুন করে ভারত- চীন উত্তেজনার পরিবেশ তৈরি করছে বলে আশঙ্কা রাজনৈতিক মহলের।

এদিকে চীনের তিব্বত থেকে বিস্তৃত প্রায় ৪৩৫ কিমি এই রেলপথ সংযুক্ত করবে দক্ষিণ তিব্বতের লাসাং, লিংঝি এবং নায়িংগেছি।

বিশেষজ্ঞদের দাবি, ভারতের অরুণাচল প্রদেশের সীমানা ঘেঁষা এই রেললাইনকে দ্বৈত ভাবে ব্যবহার করতে চাই চীন। কারন সীমান্ত এলাকার অন্নুত সড়ক পথের বদলে রেলপথ ব্যবহার করে ভারতের ভিতরে সহজেই চিনের সামরিক এবং বেসামরিক কাজকর্ম হতে পারবে। আর এই অরুণাচল প্রদেশকে চিন এখনও দক্ষিণ তিব্বতের অংশ বলে দাবি করে আসছে।

তিব্বতের জাংমুং ইয়ারলুং থেকে তাসাংপো নদীর উপর তৈরি ডবল লেনের এই ব্রীজের মোট দৈর্ঘ্য ৫২৫কিমি। যার দুই দিকেই রয়েছে পর্বত বেষ্টিত।

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

error: Content is protected !!